বেলঘড়িয়া নয়াপল্লী যতীন দাস নগরে  এক গৃহবধূর অস্বাভাবিক মৃত্যু ঘিরে চাঞ্চল্য  ছড়াল এলাকায়। বেলঘড়িয়া থানার পুলিশ মৃতার স্বামীকে আটক  করেছে। বেলঘড়িয়া যতিন দাস নগরে সন্ধ্যে ৫ টা নাগাদ পাড়ার লোকেরা জানতে পারেন  নন্দদুলাল সাহার স্ত্রী সোমালি সাহা গলায় দড়ি দিয়ে মারা গেছে। তাকে সাগরদত্ত হাসপাতালে অ্যাম্বুলেন্সেনিয়ে গেছে নন্দদুলাল।

বিষয়টি সন্দেহজনক মনে হওয়ায় স্থানীয় বাসিন্দারা বেলঘড়িয়া থানায় খবর দেন। পুলিশ সাগর দত্ত হাসপাতাল থেকে মৃতার স্বামীকে আটক করেছে। গৃহবধূর মৃতদেহ ময়না তদন্তের জন্য পুলিশ মরগে পাঠিয়েছে। সোমবার ওই গৃহবধূর মৃতদেহের ময়নাতদন্ত হবে।মৃতার বাড়ির লোক ও পাড়া-প্রতিবেশীদের অভিযোগ,  ওই গৃহবধূকেকে গলায় ফাঁস দিয়ে খুন করে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে। গৃহবধূর সঙ্গে সম্পর্ক ভালো ছিল না স্বামীর। বেশ কিছুদিন আগেই স্বামীর বিরুদ্ধে স্থানীয় ক্লাবে অভিযোগ জানিয়ে আসে স্ত্রী।

অভিয়ুক্তের মা জানিয়েছেন, এর আগেও বিয়ে হয়েছিল ছেলের। কিন্তু স্ত্রী পাগোল হওয়ায় শেষমেশ বিয়ে ভেঙে যায়। ডিভোর্স  করে নতুন বিয়ে করে ছেলে। সংসারে টুকটাক অশান্তি যে হতো না তা নয়। তবে এরকম কিছু হবে তা ভাবতেই পারেননি তিনি। বাইরে থেকে বাড়িতে এসে তিনি দেখেন,বউমাকে মাটিতে শুইয়ে রাখা হয়েছে। পরে জানতে পারেন, সে নাকি  গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছে।