ঢাকে কাঠি পড়ে গিয়েছে, শেষ মুহূর্তের শপিং-এ যাওয়ার আগে অবশ্যই মনে রাখুন কোন ধরনের পোশাক  পুজোয় কিনলে, সেগুলি আপনি ব্যবহার করতে পারবেন সারা বছর। সেই সঙ্গে কোন পোশাক পড়ে নিশ্চিন্তে করা যাবে প্যাণ্ডেল হপিং। এই সমস্ত কিছু মাথায় রেখেই পুজোর শপিং করুন। আর তো দিন পনেরো বাকি পুজোর। যারা এখনও শপিং শুরু করেননি তারা এবার চটপট জামাকাপড় কিনে ফেলুন। পুজোর ক'টা দিন সাজিয়ে তুলুন নিজেকে।  আর এখন ছেলেরাও অনেক বেশি ফ্যাশন সচেতন। সুতরাং ছেলেদের জন্য রইলো কয়েকটি ফ্যাশন টিপস।

পুজোর জামা কাপড় সাধারণত সারা বছর আমরা পড়ি। সুতরাং এটা মাথায় রেখেই শপিং করা ভালো। তাই অতিরিক্ত রঙচঙে, গ্লেজ-যুক্ত পার্টি শার্ট না কেনাই শ্রেয়। ট্রেন্ডি পোশাকের সঙ্গে টাইমলেস পোশাক ও এবার ফ্যাশনে ইন। কালো বা সাদা পোলো টি-শার্ট, এক রঙের ফর্মাল শার্ট, সাদা বা কালো এক রঙের টি-শার্ট এবার বেশ চলছে। তবে এই জিনিস সুতির কেনাই ভালো।

 টি-শার্টের ক্ষেত্রে এখন ট্রেন্ড ক্য়াপশন লেখা ডিজাইন। আপনার ব্যক্তিত্বের সঙ্গে মাননসই টি-শার্ট কিনতেই পারেন। নজর রাখুন ফিটের দিকে। খুব বেশি ঢিলে বা টাইট কখনই কিনবেন না। কমফর্টেবল মনে হলে ফুল হাতাও নিতে পারেন। পুরুষদের ফ্যাশানে এখন ইন ফ্লোরাল প্রিন্টের হাফ-শার্ট। এই শার্টগুলি সাধারণত ঢিলে ফিট হয়। তবে শার্টের হাতা যাতে বেশি বড় না হয় সেটা লক্ষ রাখা জরুরি। 

জিন্সের মধ্যে ডার্ক ডেনিম বা কালো রঙের স্লিম ফিট জিন্স বেশ স্মার্ট এবং বেশ চলছে। পুজোর অষ্টমীতে পাঞ্জাবি তো মাস্ট। তাই কেনাকাটার তালিকায় পাঞ্জাবি তো রাখতেই হবে। দুই ধরনের পাঞ্জাবী হয়। গর্জাস, ভারি কাজের পাঞ্জাবি ও এক রঙের বা হালকা কাজের পাঞ্জাবি দুটোই বেশ চলছে। সুতরাং স্টাইল স্টেটমেন্ট আর মনপসন্দ পোষাক পেয়ে যাবেন হাতিবাগানের কলকাতা ফ্যাশন বাজারে।