প্রথমেই একটা সুখবর দিয়ে নিই। ব্রেস্ট ফিডিংয়ের  ফলে কিন্তু আপনার শরীরের মেদ ঝরে। অতএব, আনন্দ সহকারে এগিয়ে আসুন। ব্রেস্ট ফিডিং করানো মানেই আপনাকে দেখতে খারাপ হয়ে যাওয়া নয় কিন্তু।

এরপর আসি আসল কথায়। ব্রেস্ট ফিডিংয়ের সময়ে কিন্তু আপনাকে ঠিকমতো খাওয়াদাওয়া করতে হবে আপনার বাচ্চার স্বার্থেই। কারণ, মনে রাখবেন, মাতৃদুগ্ধের মান কিন্তু নির্ভর করে আপনি কী খাচ্ছেন,  তার ওপর।  তারমানে এই নয় যে, অস্বাভাবিক খাওয়া খেতে হবে আপনাকে। শুধু একথাই বলতে চাইছি, আপনাকে ঠিকমতো সুষম আহার করতে হবে।  তাছাড়া, বাচ্চাকে ঠিকমতো ফিড করালে আপনার খিদেও পাবে খুব। ঠিকমতো খান, পেটভরে খান।

স্তন্য়পানের সময়ে কিন্তু আপনাকে খুব রিল্য়াক্সড থাকতে হবে। দেখা গিয়েছে, খুব টেনশনে থাকলে দুধ তৈরি হলেও তা ঠিকমতো মিল্ক ডাক্টে গিয়ে পৌঁছয় না। তাই এই সময়ে যতটা সম্ভব মন ভাল রাখুন।

অনেকেই জানতে চান, সদ্য়োজাতকে দিনে কতবার আর কতক্ষণ ধরে স্তন্য়পান করানো উচিত। এর উত্তরে যা বলতে হয় তা হল, এর কোনও বাঁধাধরা নিয়ম নেই। আপনি চাইলে পাঁচমিনিটও খাওয়াতে পারেন। চাইলে পনেরো মিনিটও খাওয়াতে পারেন। পুরোটাই নির্ভর করছে, বাচ্চা কত তাড়াতাড়ি স্তন থেকে দুধ টেনে বার করে নিতে পারছে। এছাড়াও দেখতে হয়, সে কতটা দুধ খাচ্ছে আর কতটা দুধ হজম করছে। একটা কথা মনে রাখবেন, পেট ভরে গেলে বাচ্চা নিজেই বুকের দুধ খাওয়া বন্ধ করে দেবে।