হার্ট সুস্থ থাকলে অনেক বড় বড় রোগের সঙ্গেও মোকাবিলা করা যায়। কিন্তু একবার হার্টের অসুখের পাল্লায় পড়লে তা থেকে বেরনো বেশ মুশকিল হয়ে পড়ে। তাই প্রথম থেকেই কী ভাবে হার্ট ভালো রাখা যায় সেদিকে নজর দিতে হবে। রোজকার ব্য়স্ততা, স্ট্রেস, এসবের মধ্যে আলাদা করে শরীরচর্চা করার সুযোগ পাওয়া কঠিন। আর শরীর চর্চার অভাবে ক্যালরি বার্ন না হলেই তখন চেপে বসে ডায়াবেটিস, উচ্চরক্তচাপের মতো রোগ। তবে শরীর চর্চা না করলেও ডায়েটের উপর নজর দেওয়া উচিত। কারণ আপনি কী খাচ্ছেন তার উপরে অনেক কিছুই নির্ভর করছে। 

আরও প্রভাবঃ মহিলাদের শরীরের গঠনই বলে দেয় তাঁদের হার্ট কতটা সুস্থ

সম্প্রতি হওয়া একটি গবেষণা বলছে রোজকার ডায়েট থেকে যদি নির্দিষ্ট পরিমাণ ক্যালরি বাদ দেওয়া যায় তা হলেই হার্টের বিভিন্ন সমস্যা এড়িয়ে চলা যায়। দ্য ল্যান্সেট ডায়াবেটিসস অ্যান্ড এন্ডোক্রিনোলজি জার্নালে প্রকাশিত একটি রিপোর্ট থেকে জানা গিয়েছে, আপনার রোজকার ডায়েটে ক্যালরিতে সামান্যতম পরিবর্তন হলেও তার প্রভাব পড়ে হার্টের উপরে। শরীর ব্লাড সুগার লেভেল নিয়ন্ত্রণে রাখতেও ক্যালরি কতটা শরীরে যাচ্ছে তার উপরে নির্ভর করে। 

ক্যালরি বার্ন নিয়ে বেশ কয়েকটি সাধারণ ধারণা আছে যা এই গবেষণার সময়ে আলোচনা করা হয়। যেমন অনেকেই মনে করেন শুধুমাত্র মেদ ঝরাতেই ক্যালরি বার্ন করা জরুরি। অথবা যাঁদের ওজন বেশি তাঁদের জন্যই এটি প্রযোজ্য। কিন্তু গবেষণা অনুযায়ী, ডায়েটে সামান্য় ক্যালরি কমালেই  উপকারী কোলেস্টেরল লেভেলে ভালো ভাবে থাকে। যে কোনও ওজনের মানুষের জন্যই এটি প্রযোজ্য। রোজকার ডায়েট থেকে ৩০০ ক্যালরি বাদ দিলে হার্টই শুধু ভালো থাকে না ব্লাড প্রেশার, ব্লাড সুগার এগুলিও নিয়ন্ত্রণে থাকে। 

ডায়েট থেকে কিছু পরিমাণ ক্যালরি বাদ দিলে মেটাবলিজমেও বেশ পরিবর্তন আসে। যদিও এই গবেষণার  প্রধান গবেষক উইলিয়াম ই ক্রস জানিয়েছেন, ডায়েট থেকে ক্যালরি বাদের সঙ্গে  মেটাবলিজনমের সম্পর্ক নিয়ে একটি পরীক্ষা চলছে। 

সম্প্রতি হওয়া গবেষণায় বিশেষজ্ঞরা দেখেছেন, ২ বছরে ২৫ শতাংশ ক্য়ালরি ডায়েট থেকে বাদ দিয়েছিলেন যাঁরা, তাঁদের হার্ট অন্যদের তুলনায় অনেকটাই সুস্থ।