আর যাই হোক নতুন নতুন রেসিপি কিন্তু বানাতে ভালোই লাগে। বিশেষ করে যারা রান্না করে খাওয়াতে ভালোবাসেন। তাঁদের কথা মাথায় রেখেই আজ রয়েছে মটনের একটু অন্য স্বাদের রেসিপি। একঘেয়ে পদ থেকে মুক্তি পেতে, বানিয়ে দেখুন এই রেসিপি। এটি বানানো খুবই সহজ। আর খেতেও দারুন। আর মটনের নতুন রেসিপি শিখে রাখাই যায়। তবে আর দেরি না করে পরিবারের সবাইকে তাক লাগিয়ে দিন শাহী মালাই মটন বানিয়ে।

আরও পড়ুন- মটনের এই পদেই পাত হবে সাবাড়, রইল রেসিপি

মালাই মটন বানাতে লাগবে-

হাফ কেজি মটন
আধ কাপ টোম্যাটো পেস্ট
আধ কাপ ঘন দই
১টা তেজ পাতা
২-৩টে ছোট এলাচ
১/৮ চা চামচ শাহ জিরা
১ ইঞ্চি দারচিনি
২-৪টে লবঙ্গ
১টা জয়িত্রী
আধ চা চামচ গোল মরিচ
দেড় চামচ আদা-রসুন বাটা
১/৪ কাপ বেরেস্তা
২-৩ টে চেরা কাঁচালঙ্কা
৮-১০টা পুদিনা পাতা কুঁচি
২ টেবল চামচ ধনেপাতা কুঁচি
১ চা চামচ লঙ্কা গুঁড়ো
২ চা চামচ হলুদ গুঁড়ো
১ চা চামচ গরম মশলা গুঁড়ো
আধ চা চামচ কসৌরি মেথি
১/৪ কাপ ক্রিম
পরিমাণ মতো তেল বা মাখন

আরও পড়ুন- আজ রইল চটজলদি মুখরোচক ভুট্টার এই পদ, যা ছোটদের জন্য খুব স্বাস্থকর

যে ভাবে বানাবেন –

প্যানে ১ টেবল চামচ তেল গরম করে সব গুঁড়ো মশলা দিন।
নেড়ে নিয়ে আদা-রসুন বাটা দিয়ে দিন গন্ধ বেরোলে মটন দিয়ে মাঝারি আঁচে ৩-৪ মিনিট ভেজে নামিয়ে রাখুন।
এ বার ওই প্যানেই ১ টেবল চামচ তেল দিয়ে টোম্যাটো পিউরি দিয়ে নুন দিয়ে নাড়তে থাকুন। 
৪-৫ মিনিট পর আঁচ বন্ধ করে দিন।
ঠান্ডা হয়ে গেলে ভাজা মটন, টোম্যাটো পিউরি, দই, ভাজা পেঁয়াজ, পুদিনা, ধনেপাতা, লঙ্কাগুঁড়ো ও অর্ধেক গরম মশলা গুঁড়ো দিয়ে একসঙ্গে ম্যারিনেড করে ১ ঘণ্টা ফ্রিজে রেখে দিন।
এ বার কড়াইতে তেল বা মাখন গরম করে মটন দিন।
একদম কম আঁচে ক্রমাগত নাড়তে থাকুন।
ঢাকনা দিয়ে রান্না হতে দিন যতক্ষণ না মটন পুরোপুরি সেদ্ধ হচ্ছে।
বাকি অর্ধেক গরম মশলা গুঁড়ো ও কসৌরি মেথি দিন। 
ঘন ক্রিম দিয়ে গ্রেভি মাখা মাখা করে নামিয়ে নিন।
উপর থেকে ধনেপাতা কুচি ছড়িয়ে দিন। 
সুন্দর করে সাজিয়ে পরোটা বা রুটির সঙ্গে পরিবেশন করুন।