আমরা অনেকেই ভাবি ডিপ্রেশন বুঝি বড়দেরই শুধু হয়। কিন্তু ছোটদেরও যে ডিপ্রেশন হয় আর তাকে যে চাইল্ডহুড ডিপ্রেশন বলা হয়, তা ক-জন জানেন। আর এই না-জানা থেকেই আমরা অনেককিছু খেয়াল করি না, যা ছোটদের আচরণের মধ্য়ে ধরা পড়ে। যার জন্য় ভবিষ্য়তে অনেক বড় খেসারত দিতে হয় ছোটদের।

তাই আসুন, বড়দের ডিপ্রেশন নিয়ে আমরা যেরকম সচেতন হয়েছি, তেমনই ছোটদের ডিপ্রেশনও নিয়েও কিছু জেনে নিই। কিছু লক্ষণ যদি দেখতে পাই ছোটদের মধ্য়ে, তাহলে অবহেলা না-করে অবশ্য়ই যেন মনোবিদের কাছে যাই।

ছোটদের ডিপ্রেশনের বেশ কিছু লক্ষণ রয়েছে। আসুন জেনে নেওয়া যাক।

আপনার বাচ্চা যদি মাঝেমধ্য়েই পেটব্য়থা বা মাথা ব্য়থার সমস্য়ার কথা জানায় আর যদি দেখা যায়, রোগ সেভাবে কিছুই নেই, তাহলে হতে পারে ওর মধ্য়ে ডিপ্রেশন কাজ করছে।

আপনার বাচ্চা যদি কাউর সঙ্গে মিশতে না-চায় অথবা মিশতে না-পারে, তাহলে খেয়াল রাখুন। সমবয়সী কোনও বন্ধু যদি না-থাকে বা থাকলেও যদি তা হাতেগোনা হয়, তাহলেও সচেতন থাকুন। হতে পারে ওর ডিপ্রেশন রয়েছে।

আপনার বাচ্চার যদি ছোট থেকেই হজমের সমস্য়া থাকে, সে যদি কোষ্ঠকাঠিন্য়ে ভোগে, তাহলে হতে পারে সে ডিপ্রেশনে ভুগছে।

আপনার বাচ্চা যদি পড়াশোনা একদমই না-করতে চায় বা পরীক্ষার ফল খারাপ করে, তাহলে হতে পারে সে ডিপ্রেশনে ভুগছে।

আপনার বাচ্চা যদি অতিরিক্তি সংবেদনশীল হয়, অতিরিক্ত আবেগপ্রবণ হয়, তাহলে হতে পারে সে  ডিপ্রেশনে ভুগছে।

আপনার বাচ্চা যদি আপন মনে গুমরে গুমরে মরে, কাউকে কিছু খুলে বলতে পারে না, তাহলে হতে পারে সে ডিপ্রেশনে ভুগছে।

আপনার বাচ্চার যদি অস্বাভাবিক রাগ হয় মাঝেমধ্য়ে, তাহলে হতে পারে সে ডিপ্রেশনে ভুগছে।

আপনার বাচ্চা যদি সর্বক্ষণ অন্য়মনস্ক থাকে, আনমনে আকাশের দিকে চেয়ে চেয়ে ভাবতে থাকে, তাহলে হতে পারে সে ডিপ্রেশনে ভুগছে।

এবার বলে রাখা ভাল, এর কোনও একটি লক্ষণ থাকলেও যে সে ডিপ্রেশনে ভুগছে বা চাইল্ডহুড ডিপ্রেশনের পেশেন্ট হয়ে গিয়েছে, এমনটা কিন্তু নয়। এর মধ্য়ে বেশ কয়েকটি লক্ষণ যদি একসঙ্গে দেখা যায়, তাহলে হতে পারে সে ডিপ্রেসনে ভুগছে। এক্ষেত্রে আপনার যদি সন্দেহ হয়, অবশ্য়ই একজন মনোবিদের কাছে যান। ওর কাউনসেলিং প্রয়োজন হতে পারে। এমনকি কোনও কোনও ক্ষেত্রে ওষুধেরও দরকার হতে পারে। উপেক্ষা করলে ওর ছোটবেলা তো সমস্য়াদীর্ণ হবেই, এমনকি বড়বেলাতেও তার প্রভাব পড়বে।