মুখের দুর্গন্ধ মানেই সামাজিক বিড়ম্বনা। আপনি হয়তো টেরই পেলেন না, আপনার সামনে বসতে গিয়ে লোকে সঙ্গে সঙ্গে উঠে পড়ছে। কারণ যখন বুঝতে পারলেন, তখন খুব দেরি হয়ে গেল।

যদিও মুখের দুর্গন্ধ খুবই সাধারণ একটি সমস্য়া। অনেকেরই থাকে। কতগুলি বিষয় মাথায় রাখুন এক্ষেত্রে।

নিয়মিত জিভ পরিষ্কার রাখুন।  দিনে অন্তত দুবার দাঁত ব্রাশ করুন। বড় এলাচ এখন আর সেভাবে পাওয়া যায় না। তাই ছোট এলাচ মুখে রাখুন। মৌরি চিবিয়ে খেতে পারেন। পুদিনা পাতাও ভাল কাজ দেয়। চাইলে লবঙ্গ খেতে পারেন। লেমন অয়েল মাউথ ওয়াশ হিসেবে ব্য়বহার করতে পারেন। এককাপ ঈষদষ্ণু জলে দু-চামচ লেবুর রস মিশিয়ে খেতে পারেন। দুধ চা নয়, বরং লিকার চা বা ব্ল্য়াক টি আর গ্রিন-টি মুখের দুর্গন্ধ দূর করে।

তবে এসবের পরও যদি মুখের দুর্গন্ধ থেকে যায়, তাহলে কিন্তু বিষয়টা ভাবনার। তখন আর বাইরে থেকে নয়। বরং ভেতর থেকে চিকিৎসার ব্য়বস্থা করতে হবে। বলে রাখা ভাল, দাঁত বা মাড়ির সমস্য়াতেও কিন্তু মুখে দুর্গন্ধ হয়। সেক্ষেত্রে একজন দাঁতের ডাক্তারকে দেখিয়ে নিন। আর তাতেও যদি কাজ নয়, তাহলে একজন জেনারেল ফিজিশিয়ানকে দেখিয়ে নিন। হতে পারে লিভারের সমস্য়া থেকে আপনার মুখে দুর্গন্ধ হচ্ছে। সেক্ষেত্রে যথাযথ চিকিৎসা দরকার।  আর সেইসঙ্গে দরকার কিছু খাওয়া দাওয়ার ওপর বিধিনিষেধ জারি করা।

তবে দেখা গিয়েছে, দিনে ভাল করে দুবার ব্রাশ করে, মুখে এলাচ বা মৌরিজাতীয় কিছু একটা রেখে অনেকেই সুফল পেয়েছেন। তাই, মুখে দুর্গন্ধ নিয়ে অহেতুক বেশি চিন্তা করতে হবে না।  ওপরের টোটকাগুলো দিয়ে চালিয়ে দেখুন। তাতে না-হলে ডাক্তার দেখিয়ে নিন। ব্য়স।