মেথির নানা গুণাগুণের কথা অনেকেই জানেন। মা-ঠাকুমার মুখে হয়তো মেথি ভেজানো জল খাওয়ার কথা নিশ্চয় শুনেছেন। প্রাচীনকাল থেকে ব্যবহৃত এই ঘরোয়া টোটকা ব্যবহারে আপনার শরীররের নানা সমস্যা উধাও হবে ম্যাজিকের মতো। এর জন্য সারা রাত ধরে খানিকটা মেথি এক গ্লাস জলে ভিজিয়ে রাখুন। পরের দিন সকালে সেই মেথি ভেজানো জল পান করুন। ফল পান হাতে-নাতে। দেখে নিন কোন কোম সমস্যাকে দূরে রাখে এক গ্লাস মেথি ভেজানো জল।

১) হৃদরোগের সমস্যাকে দূরে রাখে- মেথিতে রয়েছে পটাশিয়াম, যা রক্তে লবণের পরিমাণ কমায়। ফলে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে থাকে, যা হার্ট অ্যাটাক এবং অন্যান্য হার্টের সমস্যার সম্ভাবনা এনেকটাই কমিয়ে আনে।

২) কোলেস্টরলের মাত্রা কম করে- সাম্প্রতিককালে খুব কম বয়স থেকেই হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ার প্রবণতা বাড়ছে। তাই কম বয়স থেকেই নিয়মিত হারে মেথি ভেজানো জল খাওয়া উচিৎ। কারণ এতে থাকা স্টেরিওডাল সাপোনিনস নামক একটি উপাদান শরীরে কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে। যাতে প্রকারান্তরে স্ট্রোক বা হার্ট অ্যাটাকের সম্ভাবনা হ্রাস পায়।

৩) রক্তে সুগারের মাত্রাকে নিয়ন্ত্রণে রাখে- ব্লাড সুগারের সমস্যা আজ সব বয়সী মানুষদের মধ্যে বর্তমান। ব্লাড সুগারের সমস্যা দুর করতে সাহায্য করে মেথি। কারণ মেথিতে রয়েছে অ্যামাইনো অ্যাসিড, যা ইনসুলিনের কর্মক্ষমতা বাড়িয়ে দেয়। এই কারণেই ব্লাড সুগারের মাত্রা থাকে নিয়ন্ত্রণে।

৪) ওজন কমাতে সাহায্য করে- প্রতিদিন সকালে খালি পেটে, মেথি ভেজানো জল খাওয়ার অভ্যাস করলে শরীরে ফাইবারের মাত্রা বাড়তে শুরু করে। ফলে স্বাভাবিকভাবেই ক্ষিদে কমে যায়। অতিরিক্ত মাত্রায় খাবার খাওয়ার প্রবণতা কমলেই ওজন কমতে শুরু করে। 

৫) হজম ক্ষমতা বাড়ায়- মেথিতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, যা হজম ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে। শুধু তাই নয়, নিয়মিত সকালে খালি পেটে মেথি ভেজানো জল খেলে কোষ্টকাঠিন্যের সমস্যাও দূর হয়।