অনেকেই মনে করেন, গুচ্ছের কসমেটিস মাখলেই ত্বকের জেল্লা বাড়ে। কিন্তু এ ধারণা একেবারেই ভুল। কসমেটিকস আপনাকে খানিক্ষণের জন্য় গ্ল্য়ামারাস করে তুলতে পারে, কিন্তু তাতে করে কিন্তু ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়বে না ভেতর থেকে। কসমেটিকস ধুয়ে ফেলার পর আবার যে কে সেই হয়ে যাবে ত্বকের অবস্থা।

তাই নিয়মিত যোগা আর সুষম খাদ্য়ের সমন্বয় আপনার ত্বককে চিরনবীন করে রাখতে পারে। সুষম খাওয়া বলতে সব কিছুই।  সবুজ শাকসবজি, ডাল-তরকারি, দুধ বা দই,  নিয়মিত একটা করে ফল। আপনার খাদ্য় তালিকায় যেন নিয়মিত ভিটামিন-সি থাকে, সেইদিকে খেয়াল রাখবেন। এই ভিটানিন-সি কিন্তু আমাদের বুড়িয়ে যাওয়া আটকাতে দারুণ কাজ করে। এর জন্য় আপনাকে দাম দিয়ে মুসাম্বি লেবুই খেতে হবে তার কোনও মানে নেই। নিয়মিত পাতিলেবু বা সস্তার আমলকিও খেতে পারেন। প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন-সি থাকে এগুলোতে।

এবার আসি যোগার কথায়। জানেন তো, যাঁরা যোগা করেন তাঁদের বয়স বোঝা যায় না সহজে। আসলে যোগা আমাদের চিরতরুণ করে  রেখে দিতে পারে।  আর, ত্বকই আপনার তারুণ্য়ের সদর দরজা। ত্বক দেখেই বোঝা যায়, আপনি কতটা তরুণ আছেন এই বয়সেও। তবে যোগা কিন্তু আপনাকে নিয়মিত করতে হবে। ধৈর্য ধরে। প্রথমদিকে একজন প্রশিক্ষিত কেউ দেখিয়ে দিলে ভাল হয়। পরে আপনি নিজে নিজেই করে নিতে পারবেন। তবে যোগা করলে সঙ্গে সঙ্গেই যে ম্য়াজিকের মতো তার ফল পাবেন তা কিন্তু নয়। আপনাকে একটু ধৈর্য ধরতে হবে। এটা দীর্ঘমেয়াদী প্রক্রিয়া। দেখবেন, নিয়মিত যোগা করার ফলে একসময়ে লোকে বলবে, কই আপনার বয়স বাড়ছে না তো। অবশ্য় তার জন্য় কিছুদিন অপেক্ষা করতে হবে। ক্রিম, কসমেটিকস তো বাইরে থেকে আপনার ত্বককে উজ্জ্বল করবে,তা-ও সাময়িকভাবে। কিন্তু নিয়মিত যোগা, সুষম খাদ্য় আর অবশ্য়ই প্রতিদিন নিয়ম করে সাতঘণ্টা ঘুম, আপনার ত্বককে ভেতর থেকে করে তুলবে উজ্জ্বল। তাহলে আর দেরি কেন। শুরু করে দিন আজ থেকেই।