আমাদের দেশে বৈদ্যুতিক গাড়ির নতুন অধ্যায় শুরু হচ্ছে। বিখ্যাত ব্র্যান্ডগুলি এখন  পরিবেশের প্রতি অনেক বেশি মনোযোগী আর তাই ইলেকট্রিক বা বৈদ্যুতিক গাড়ি নতুন পরিচয় তৈরি করছে এই ব্র্যান্ডগুলোর। সম্প্রতি মাহিন্দ্রা অ্যান্ড মাহিন্দ্রা ঘোষণা করল নতুন ব্র্যান্ড আইডেন্টিটি- মাহিন্দ্রা ইলেক্ট্রিক মোবিলিটি। তাদের নতুন লোগো ও নতুন ট্যাগলাইন 'স্পার্ক দি নিউ' বৈদ্যুতিক গাড়ির দুনিয়ায় নতুন সংযোজন। মনে করা হচ্ছে যে  বিশ্বের ইলেকট্রিক মোবিলিটি টেকনোলজি সলিউশনের পুরোধা হিসেবে নিজেদের স্থাপন করার ক্ষেত্রে এই নতুন ব্র্যান্ড আইডেন্টিটি তারা কাজে লাগাবে। এই সংস্থা এখন বৈদ্যুতিক গাড়ি ও হার্ডওয়্যার সলিউশন বিক্রি করবে এম ই ব্র্যান্ডের মাধ্যমে আর সফটওয়্যার সলিউওশনস থাকবে এনইএমও ব্র্যান্ডের আওতায়।

গত এক যুগেরও বেশি সময়কাল ধরে তাদের বিস্তৃতি ও অভিজ্ঞতা বৈদ্যুতিক গাড়ির প্রযুক্তির সঙ্গে, মাহিন্দ্রা অ্যান্ড মাহিন্দ্রা এখন প্রস্তুত হচ্ছে এদেশে একটি ইভি হাব তৈরি করার লক্ষ্য নিয়ে এবং নিজেদের প্রযুক্তি সমগ্র বিশ্বে প্রসারিত করতে তারা বদ্ধপরিকর।  নতুন দিনের নতুন প্রযুক্তি ব্যবহার করে নতুন পণ্য উৎপন্ন করে সমাজে ইতিবাচক বার্তা দেওয়ার ইচ্ছে নিয়েই তারা এই নতুন ভেঞ্চারে এসেছে। চিরায়ত চলমানতার কথা মাথায় রেখে যে কেউ যোগ দিতে পারে মহিন্দ্রা ইলেকট্রিক-এর এই নতুন যজ্ঞে। তাদের ট্যাগলাইন সেই নতুন বিচ্ছুরণকেই স্বাগত জানাচ্ছে- 'স্পার্ক দি নিউ'

মহিন্দ্রার এই ঘোষণা এমন দিনে হল যেদিন মাহিন্দ্রা ইভি ২০০ মিলিয়ন কিমি বাধা অতিক্রম করল। যার অর্থ ২২,০০০মেট্রিক টন কার্বন নিঃসরণ প্রতিরোধ করতে পারা।   ১০ লাখ বৃক্ষ রোপণের মাধ্যমে এই পরিমাণ কার্বন ডাই অক্সাইড নিঃসরণ রুখতে পারা যাবে। 
মহিন্দ্রা বৈদ্যুতিক গাড়ির কথাই যখন হচ্ছে তখন বলে রাখা ভালো- এবারের ২০২০-এর অটো এক্সপো-তে ৪ টি নতুন ইভি থাকবে মাহিন্দ্রার। সব মিলিয়ে এই ইভিগুলো এই সংস্থার মোট ১৮টি গাড়ি থাকবে এক্সপো-এ।