একে ১৫ অগাস্ট। তার উপরে আবার রাখি পূর্ণিমা। তাই ভাল করে দাদা বা ভাইকে রাখি পরিয়ে, তার থেকে উপহার আদায় করে নেওয়ার অগাধ সময়। সঙ্গে পাত পেড়ে কবজি ডুবিয়ে নানা পদ দিয়ে খাওয়া। 

তবে এই রাখি নিয়ে বহু রকমের কাহিনি প্রচলিত রয়েছে। যদিও এখন শুধু ভাই বা দাদার হাতেই নয়, বন্ধুদের হাতেও রাখি বাঁধেন। কিন্তু সব উৎসবেরই একটা ইতিহাস ও গোড়ার গল্প রয়েছে। জেনে নেওয়া যাক রাখি  নিয়ে কী কী গল্প প্রচলিত রয়েছে- 

১) ভাইফোঁটার মতোই এখানেও যম ও যমুনার ভূমিকা রয়েছে। যমুনাও যমের হাতে রাখি পরেছিলেন। 

২) গণেশের দুই পুত্রের নাম শুভ ও লাভ। একদিন তারা গণেশের কাছে বলে,  তারা তাদের বোনের হাত থেকে রাখি পরতে চায়। কিন্তু বোন তো নেই। সেই সময়ে দুই স্ত্রী ঋদ্ধি ও সিদ্ধির অন্তরের অগ্নি থেকে সন্তোষী মা-কে সৃষ্টি করেন গণেশ। তাঁকেই রাখি পরায় শুভ ও লাভ।

৩) পাঞ্চালী ও শ্রীকৃষ্ণের বন্ধুত্ব কে না জানে! এক বার শ্রীকৃষ্ণের হাত কেটে যায়। তখন নিজের পোশাকের অংশ ছিঁড়ে শ্রীকৃষ্ণের হাতে বেঁধে দেন পাঞ্চাল কন্যা দ্রৌপদী। 

৪) দেবী লক্ষ্মীর সঙ্গে বানররাজ বালিকে নিয়েও একটি গল্প প্রচলিত রয়েছে। এরবার বালির কাছে দরিদ্র মহিলার বেশে এসে দেবী লক্ষ্মী সাহায্য চান। বালি তার প্রাসাদের দরজা খুলে আশ্রয় দেয়। তখন বালির উপরে খুশি হয়ে লক্ষ্মী একটি কাপড় বেঁধে দেয়।