এপার ও ওপার বাংলা-সহ ওড়িশাতে রীতিমতো দাপট চালিয়েছে শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় আমফান। ক্ষয়ক্ষতির পরিমান, আশঙ্কা যতটা করা হয়েছিল তার থেকে কয়েকগুন বেশি হয়েছে।  ঘূর্ণিঝড় আমফানে সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়েছে উত্তর ও দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা। করোনার থেকেও পরিস্থিতি ভয়াবহ, লক্ষ লক্ষ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। ২০ মে বুধবার বিকেলে বন্যা এবং বৃষ্টিপাতের ফলে উপকূলীয় অঞ্চলগুলিতে মারাত্মক ক্ষতি হয়ে গিয়েছে। ১৫৫-১৬০ কিমি প্রতি ঘণ্টায় এই ঝড়টি একা বাংলায় বহু মানুষ-সহ অসংখ্য পশু ও পাখি মারা গিয়েছে। সেই সঙ্গে হাজার হাজার মানুষ গৃহহীন হয়ে ঠাঁই নিয়েছে খোলা আকাশের নিচে। বাংলার এই ভয়াল চিত্র কিছু ইলাস্ট্রেটর ও অ্যানিমেশন-এর মাধ্যমে তুলে ধরা হয়েছে। 

 

 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 

If you kick me when I am down, you better pray I don't get up! #bengalroars #strongerthanbefore

A post shared by Aniket Mitra (@mitraniket) on May 21, 2020 at 5:20am PDT

 

অনিকেত মিত্র - স্বতন্ত্র অ্যানিমেটার, চিত্রক এবং গ্রাফিক ডিজাইনার জানিয়েছেন, ”আমি এখন অবধি যে ছবিগুলি এঁকেছি, তা কেবল মানুষকে আশা এবং বিশ্বাস দেওয়ার জন্য। আমরা লড়াই করতে হবে এবং এই পরিস্থিতিতে ঘুড়ে দাঁড়াতেই হবে। আমরা নির্ভীক হতে পারি, একদিকে মহামারী রয়েছে এবং তারপরে এই ঘূর্ণিঝড়ের কারণে ধ্বংস হয়েছে। আমি চাই যে লোকেরা যখন এই চিত্রগুলি দেখবে তখন তারা আশা হারাবে না এবং নিজেদেরকে বলবে "হাল ছেড়ো না বন্ধু!"

 

 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 

Stand Up For What You Believe In. Even If It Means Standing Alone. #bengalroars #strongerthanbefore💪

A post shared by Aniket Mitra (@mitraniket) on May 21, 2020 at 8:43pm PDT

 

উপমন্যু ভট্টাচার্য, ঘোস্ট অ্যানিমেশন অ্যানিম্যাটর। বর্তমানে ভারতের বাইরে তিনি জলবায়ু পরিবর্তন এবং এর বিরূপ প্রভাব সম্পর্কে সর্বদা উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। আর শিল্পীর এই উদ্বেগ ফুটে উঠেছে তাঁর আঁকার প্রতিটি আচড়ে। 

চিত্রশিল্পী কৃষ্ণেন্দু মন্ডল তাঁর পোস্টে লিখেছেন, “শিল্পী হওয়ার কারণে আমাদের পক্ষে লকডাউন এবং ঘূর্ণিঝড় আমফান কফিনে শেষ পেরেক রেখেছিল বলে আমাদের পক্ষে খুব কঠিন পরিস্থিতি। শুধু এটিই নয়, আমি আমার রাজ্যের বিভিন্ন অঞ্চলে এর বিপর্যয়ের প্রভাব দেখেছি। সবকিছু তাই গণ্ডগোল। আমার রাজ্যের এই পরিস্থিতি খুব বেদনাদায়ক। ক্ষেতগুলির সমস্ত কিছু ধ্বংস হয়ে গেছে। তবে আমরা এই প্রতিকূলতার বিরুদ্ধে লড়াই করব। আসুন আমরা এই ভয়াবহ পরিস্থিতিতে ইতিবাচক চিন্তাভাবনা করি এবং ইতিবাচকতা ছড়িয়ে থাকি। ”

 

ভালো থাকো সুন্দরবন! আবার লড়াই করে উঠতে হবে! ভোলা হবেনা আয়লা, পিলিন, হুদহুদ, ফনী,বুলবুল, আম্ফানে তোমার সংগ্রামের দিনগুলো! #PrayForSundarbans

Posted by Krishnendu Mondal on Friday, 22 May 2020

তিনি নিজের পোস্টে সুন্দরবনের উদ্দেশ্যে আরও লিখেছেন, ''ভালো থাকো সুন্দরবন! আবার লড়াই করে উঠতে হবে! ভোলা হবেনা আয়লা, পিলিন, হুদহুদ, ফনী,বুলবুল, আম্ফানে তোমার সংগ্রামের দিনগুলো!'' 'যে জাত পাঁচটা নোবেল জয় করতে জানে। যে জাত রক্ত দিয়ে স্বাধীনতা ছিনিয়ে আনতে জানে। উঠে দাঁড়াবে আবার!'

 

যে জাত পাঁচটা নোবেল জয় করতে জানে। যে জাত রক্ত দিয়ে স্বাধীনতা ছিনিয়ে আনতে জানে। উঠে দাঁড়াবে আবার! #SafeBengal #HelpBengal #NKMediaOfficial

Posted by Krishnendu Mondal on Thursday, 21 May 2020


মাহফুজ আলী - কমিক শিল্পী ও গ্রাফিক শিল্পী লিখেছেন, “যখন আমি শুনলাম এই ঘূর্ণিঝড়টি আঘাত হানতে যাচ্ছে তখন আমি সুন্দরবন, সাগরদ্বীপের মতো জায়গাগুলি নিয়ে ভাবলাম, যেখানে অনেক লোক জেলে আছেন এবং তারা ঠিক আছেন এই আশ্বাস দিয়ে একটি চিত্র তুলে ধরেছিলেন। আমি কেবল প্রার্থনা করেছিলাম যে তাদের যেন কোনও ক্ষতি না হয়। 

 

#PrayforBengal #SaveBengal #HelpBengal

Posted by MAli's on Thursday, 21 May 2020

তিনি আরও লিখেছেন সূর্য আবার জ্বলে উঠবে দুটো রামধনু নিয়ে এবং সবকিছু সোনার হবে। বাংলার প্রতিটি অংশ আবার হবে "সোনার বাংলা"।

 

The Sun will shine again with double rainbows and everything will be golden. Every part of Bengal will again be " সোনার বাংলা".

Posted by MAli's on Friday, 22 May 2020

রেশম শাহাব তীর্থ -  স্টুডিও টেরাকোটার শিল্পী জানিয়েছেন, শুধু পশ্চিমবঙ্গের মত বাংলাদেশেও সমানভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়ে, “আমরা বিশ্বের অন্যতম ঘনবসতিপূর্ণ দেশ এবং অর্থনৈতিকভাবে দুর্বল দেশে বাস করায় করোনা আমাদের বেশ মারাত্মকভাবে আঘাত করেছেন। শারীরিক দূরত্ব এবং তাদের বাড়িতে থাকা মানুষের পক্ষে বেশ কঠিন। এটি বেঁচে থাকার জন্য ইতিমধ্যে যথেষ্ট কঠিন সময়। তারমধ্যে আসে এই প্রাকৃতিক বিপর্যয়, আম্ফান। এই দুয়ের চাপে আমার দেশের জন্য এই চিত্র ছাড়া অন্য কিছু মাথায় আসেনি।

গ্রাফিক শিল্পী অভিনন্দন বন্দ্যোপাধ্যায় ক্ষয়ক্ষতিতে বিধ্বস্ত বাংলার রূপ দেখে তিনি বলেছেন, "এখানে আমি বাড়ি থেকে কয়েক মাইল দূরে আছি ... আমার তীব্র উদ্বেগ  এই সময়ে শুধু আমার বাড়ির অবস্থা নিয়ে, যা আমাকে বিধ্বস্ত করে দিয়েছে। গতকাল বিকাল থেকে আমি আমার বাবা-মায়ের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারিনি।"

 

As Abhinandan Banerjee inks it in words and in one image for us. Hope it gets put in use and exploited optimally. "...

Posted by Abhro Banerjee on Thursday, 21 May 2020

সৌতিক দাস - পেশাদার সিস্টেম বিশ্লেষক এবং চিত্রশিল্পী লিখেছেন, দিনের পর দিন আমি আমাদের রাষ্ট্রকে পুনর্নির্মাণে যে উপায়ে সহায়তা করতে পারি সে সম্পর্কে আলোচনা করার জন্য একটি পোস্ট স্থাপন করতে যাচ্ছি। এ সম্পর্কে যে কোনও পরামর্শ আমার জন্য সহায়ক হবে।

 

Later in the day I am going to set up a post to discuss whatever way we can help our state rebuild. Any suggestion on that would be of great help.

Posted by The Babumoshai on Thursday, 21 May 2020