অন্যান্য আবেগের মতো রাগও কিন্তু একটা আবেগ। তবে এই আবেগ প্রকাশ করার ধরণ ব্যক্তি বিশেষে আলাদা আলাদা হয়ে থাকে। কেউ সহজে রাগ প্রকাশ করেন না আবার কেউ কেউ রেগে গেলে নিজেকে স্থির রাখতে পারেন না। এই দ্বিতীয় ক্ষেত্রে যাঁরা পড়েন, তাঁদের জন্য বিষয়টি কিন্তু খুবই সাংঘাতিক। অতিরিক্ত রাগের বহিঃপ্রকাশ আপনাকে ব্যক্তি হিসাবে একদিকে যেমন সকলের থেকে আলাদা করে দেয়, তেমনই আপনার শরীরেও হতে পারে এমন কিছু সমস্যা যা অনেক শারীরিক ঝুঁকি বয়ে আনতে পারে। 

১) হৃদরোগের প্রবণতা বাড়ায়- অতিরিক্ত রাগের বহিঃপ্রকাশ করলে হৃদরোগের ঝুঁকি অনেকখানি বেড়ে যায় বলে মত চিকিৎসকদের। হৃদরোগ বিশেষজ্ঞরা বলেন যে, সামান্য কারণে ঘন ঘন রেগে যান যাঁরা তাঁদের অকালে হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ার সমস্যা  আর পাঁচজনের থেকে বেশি। 

২) স্ট্রোকের সম্ভাবনা বাড়তে পারে- কারওর যদি সামান্য কারণে অতিরিক্ত রাগ হয়, তারা আজই সতর্ক হন। কারণ আচমকা রাগে মস্তিষ্কের ওপর প্রচন্ড চাপ পড়ে। এর ফলে মস্তিষ্কের রক্তনালিগুলি খানিকক্ষণের জন্য বন্ধ হয়ে যায়। যার ফলে স্ট্রোক পর্যন্তও হতে পারে। 

প্রতিদিন খান আখরোট, আর দূরে রাখুন শরীরের হাজারও সমস্যা

৩) মানসিক সমস্যা তৈরি করে- অতিরিক্ত রাগ বা মেজাজ মানুষের মনে বিষণ্ণতা তৈরি করে। কোনও সমস্যার সমাধান না করে তা নিয়ে অযথা রেগে গেলে তা নিয়ে আপনার মনে বিষণ্ণতা তৈরি হতে পারে। শুধুু তাই নয়, রাগ হলে স্ট্রেস বাড়ে, কাজে মন বসে না, একাকীত্ব বাড়ে।  

৪)  আয়ু কমে যায়- গবেষণা বলছে, সুখী মানুষ দীর্ঘদিন বাঁচেন। তাই অযথা রেগে না গিয়ে আনন্দে থাকুন আর অনেকদিন বাঁচুন।