পূর্ব মেদিনীপুর জেলার খেজুরি ২ নম্বর ব্লকের জনকা গ্রাম পঞ্চায়েতের গোড়াহাট জলপাই গ্রামে বিজেপি-তৃণমূল সংঘর্ষে উত্তপ্ত এলাকা। আজ সকাল থেকে বিজেপির বিভিন্ন কর্মসূচি চলছিল পাড়ায় পাড়ায়। সেই সময় বিজেপি কর্মী সমর্থকদের সাথে তৃণমূল কর্মী সমর্থকদের ঝামেলা বাধে। 

বিজেপির অভিযোগ, তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতী বাহিনী পুলিশের উপস্থিতিতে গুলি বোমা বর্ষণ করে। এই ঘটনায় তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীদের ছোড়া গুলিতে বিজেপি সাংগঠনিক জেলা সম্পাদক পবিত্র দাস গুরুতর আহত হয়েছে।এই ঘটনার প্রতিবাদে হেঁড়িয়ায় নন্দকুমার- দীঘায় জাতীয় সড়ক অবরোধ করে বিজেপি। তৃণমূলের তরফে এই অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে।

তৃণমূলের বিরুদ্ধে কর্মীদের ওপর আক্রমণ নিয়ে ইতিমধ্য়েই সরব হয়েছে বিজেপি। তাদের অভিযোগ, পঞ্চায়েত নির্বাচনের পর থেকে এখনও পর্যন্ত রাজ্য়ে ১০৪জন বিজেপি কর্মী খুন হয়েছে । মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায়ের কথা শুনে এই হামলা হয়েই যাচ্ছে। অথচ কোনও ব্যবস্তা নেয়নি সরকার। উল্টে প্রতিবাদ করতে গেলে পুলিশ দিয়ে গাঁজা মামলা দেওয়া হয়েছে।

কোথাও বিজেপি কর্মীদের কর্মসূচি থাকলেই সেখানে পুলিশ পাঠিয়ে দেওয়া হচ্ছে। মানুষের সঙ্গে কথা বলার আগেই বিজেপির লোকজনকে আটকে দিচ্ছে পুলিশ । এমনকী তৃণমূলের লোকজন রাস্তা আটকালেও সেখানে নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করা হচ্ছে।