করোনা আতঙ্কের জেরে অন্ত্যেষ্টিতে সমস্যা দেখা দিতে পারে, সেই আশঙ্কায় ক্যানসার রোগে মৃত মহিলার মৃতদেহ না নিয়েই চলে গেল পরিবারের লোকজন। ঘটনাটি ঘটেছে বৃহষ্পতিবার মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। যদিও মৃত মহিলার ভাই ঘণশ্যাম পণ্ডিত অভিযোগ করেছেন যে করোনা আশঙ্কায় গ্রামের শ্মশানে মৃতদেহ সৎকার করা যাবে না বলে জানিয়ে দিয়েছে গ্রামের মোড়লরা। এমনকী মেদিনীপুরের পদ্মাবতী শ্মশানেও দাহ করা যাবে না বলে জানানো হয়েছে। তাই তারা মৃতদেহ না নিয়েই বাড়ী চলে গিয়েছেন।

জানা গিয়েছে মৃত ওই মহিলার বাড়ি বেলদা থানার উত্তর বাসুটিয়া গ্রামে। তার বিয়ে হয়েছিল ডায়মণ্ডহারবারে। তার স্বামী আগেই মারা গিয়েছেন। প্রায় বছর দেড়েক আগে তার রেকটাম ক্যানসার ধরা পড়ে। তার চিকিৎসা চলছিল কলকাতা মেডিক্যাল কলেজে। পরবর্তীকালে তাকে গ্রামের বাড়িতে নিয়ে চলে আসেন বাপের বাড়ির লোকজন। 

সেখান থেকেই তার চিকিৎসা চলছিল। লকডাউন চলতে থাকায় শারিরিক সমস্যা হওয়ায় তাকে তিনদিন আগে মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বুধবার রাত সাড়ে দশটা নাগাদ তিনি মারা যান। তারপরই করোনা আতঙ্কে দাহ সমস্যা দেখা দেওয়ায় পরিবারের লোকজন মৃতদেহ রেখেই বাড়ি চলে যায়। যদিও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, পরিবারের কেউ একবারের জন্যও দাহ নিয়ে কোনও সমস্যার কথা জানায়নি।