তৃতীয় দফার লকডাউনে মদের দোকান খোলার ঢালাও অনুমতি দিয়েছে প্রশাসন। আইনশৃঙ্খলা তো বিঘ্নিত হচ্ছেই, ক্রেতাদের ভিড়ে বাড়ছে সংক্রমণের আশঙ্কা। সরকারি মদের দোকান বন্ধের দাবিতে তুমুল বিক্ষোভ দেখালেন স্থানীয় বাসিন্দা, চলল ভাঙচুরও। অগ্নিগর্ভ পরিস্থিতি পূর্ব মেদিনীপুরের মহিষাদলে।

আরও পড়ুন: রাজ্য়ে আক্রান্ত আরও ২ পুলিশকর্মী, নতুন করে কলকাতা পুলিশে সংক্রমণের আশঙ্কা

রেড, গ্রিন কিংবা অরেঞ্জ জোনের কোনও ব্যাপার নেই। তৃতীয় দফায় লকডাউনের রাজ্যের সর্বত্রই খোলা রাখা যাবে মদের দোকান। কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে নির্দেশিকা জারি করে তেমনটাই জানানো হয়েছে। জানা গিয়েছে, সরকারি সিদ্ধান্তে ক্ষোভ বাড়ছিল মহিষাদলের অমৃতবেড়িয়া গ্রামে। এলাকায় সরকার অনুমোদিত মদের দোকান খোলার প্রতিবাদে বিক্ষোভও দেখিয়েছিলেন স্থানীয় বাসিন্দারা। দেশিমদ-সহ একটি লঞ্চকে আটক করে পুলিশ, গ্রেফতার করা হয় দোকান মালিক-সহ তিনজন। পরে অবশ্য তাঁদের ছেড়ে হয়।

আরও পড়ুন: লকডাউনে জেরে বাড়ি ফিরতে না পারার হতাশা, কেরলে আত্মঘাতী বাংলার পরিযায়ী শ্রমিক

আরও পড়ুন: দিল্লি থেকে অটো-ওলা-উবার করে হরিশ্চন্দ্রপুরে পরিযায়ী শ্রমিকরা, আতঙ্কে তটস্থ মানুষ

সোমবার সকালে অমৃতবেড়িয়া গ্রামে সরকার অনুমোদিত মদের দোকান বন্ধের দাবিতে ফের বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন স্থানীয় বাসিন্দারা। বিক্ষোভকারীদের দাবি, মদ কেনার জন্য সামাজিক দূরত্ব না মেনেই দোকানের ভিড় করছেন বহু মানুষ। শুধু তাই নয়, মদ্যপ অবস্থায় আবার অনেকেই মহিলাদের অশালীন আচরণও করছেন। শেষপর্যন্ত পুলিশ যখন ঘটনাস্থলে যায়, তখন পরিস্থিতি আরও ঘোরালো হয়ে ওঠে। ভাঙচুর শুরু হয়ে যায় মদের দোকানও। লাঠিচার্জ করতে গিয়ে বিক্ষোভের মুখে পড়েন পুলিশকর্মীরাও। ঘটনায় এখনও পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করা হয়নি। গ্রামে বসেছে পুলিশ পিকেট।