গত ২৫ শে জানুয়ারি পশ্চিম মেদিনীপুরের কেশিয়াড়ি থানার অন্তর্গত রাংটিয়া গ্রামে স্বামী পরিত্যক্তা এক গৃহবধূর নগ্ন রক্তাক্ত দেহ উদ্ধার হয়েছিল গ্রামের পাশে মাঠে। শকুন্তলা মল্লিক (৩২) নামে মৃতা ওই বধু খুনের রহস্য ভেদ করে পুলিশ পাশের গ্রামের প্রেমিক তপন মান্না কে গ্রেফতার করল সোমবার।

রাংটিয়া গ্রামের বাসিন্দা ওই গৃহবধূ স্বামী পরিত্যাক্তা হয়ে বাপের বাড়িতে থাকতেন। তার ৮ বছরের মেয়ে রয়েছে। দিনমজুরের কাজ করে সংসার চালাতেন তিনি। গত ২৫ শে জানুয়ারি ভোরবেলা গ্রামের পাশে ফাঁকা মাঠে তার নগ্ন রক্তাক্ত দেহ উদ্ধার করেছিল পুলিশ। পুলিশ জানতে পেরেছিল শকুন্তলার সঙ্গে প্রতিবেশী গ্রামের এক ব্যক্তি তপন মান্নার অবৈধ সম্পর্ক ছিল।

তদন্তে নেমে পুলিশ সোমবার তপন মান্না কে গ্রেফতার করেছে। পুলিশের কাছে জেরায় তপন মান্না খুনের কথা স্বীকার করেছে। তপন মান্না পুলিশকে জানিয়েছে-তার সঙ্গে ওই মহিলার প্রেম ছিল। তা সত্ত্বেও শকুন্তলা অন্য আরো কারো সঙ্গে সম্পর্ক শুরু করেছিল নতুন করে। সেটা মেনে না নিতে পেরে রাতের বেলা বাড়ি থেকে ফোন করে ডেকে নৃশংসভাবে খুন করে শকুন্তলাকে। মদ্যপ অবস্থায় ক্ষোভের জেরে উন্মত্তের মত শকুন্তলার গোপনাঙ্গ ক্ষত-বিক্ষত করে খুন করেছিল সে।  পুলিশ তপন মান্নাকে গ্রেফতার করে খড়্গপুর মহকুমা আদালতে হাজির করেছে।