মিথ্যা ভাষণ দেওয়াটা পাকিস্তানের নৈমিত্তিক অভ্যাস। তাঙধর সেক্টরেও যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করে ভারতীয় বাহিনীর উপর গোলাগুলি ছুড়তে গিয়ে পাল্টা প্রত্যাঘাতে এঁটে উঠতে না পেরে সেই পথই ধরলেন পাক সেনার মুখপাত্র। এদিন নীলম ভ্যালিতে হামলা চালিয়ে অন্তত চারটি জঙ্গি ঘাঁটি গুঁড়িয়ে দেওয়ার দাবি করেছে ভারতীয় সেনা। কিন্তু পাকিস্তানের দাবি ওখানে জঙ্গি ঘাঁটি ছিল না, ভারতীয় রা সাধারণ নাগরিকদের হত্যা করেছে। অর্থাৎ জঙ্গিদের নিয়ে মপখ রক্ষা করতে অসামরিক নাগরিকদেরই ঢাল করল পাকিস্তান।

এদিন পাক সেনার মুখপাত্র মেজর জেনারেল আসিফ ঘফুর তার সরকারি টুইটার হ্যান্ডেলে বেশ কয়েকটি পোস্ট করে দাবি করেছেন, বিনা প্ররোচনাতেই নাকি ভারতীয় সেনা পাক অধিকৃত কাশ্মীরে অসামরিক নাগরিকদের উপর হামলা চালিয়েছে। তাতে ১ পাক সেনা ও ৫ অসামরিক পাক নাগরিকের মৃত্যু হয়েছে।  

তিনি আরও দাবি করেছেন, পাক প্রত্যাঘাতে ভারতের দুটি বাঙ্কার ধ্বংস হয়েছে, ৯ ভারতীয় সেনার মৃত্যু হয়েছে। মেজর জেনারেল আসিফ ঘফুরের আরও দাবি  জঙ্গি ঘাঁটি বলে ভারতীয় সেনারা নিরপরাধ নাগরিকদের নিশানা করছে।

একই সঙ্গে তাঁর দাবি পাক অধিকৃত কাশ্মীরে পড়ে থাকা বারতীয় সেনাদের মৃতদেহ সংগ্রহ করতে ভারতীয় সেনা নাকি সাদা পতাকা উড়িয়েছে। এর আগে ভারতীয় ভূখণ্ড থেকে পাক সেনাকে সাদা পতাকা উড়িয়ে তাদের সদস্যদের দেহ সংগ্রহ করতে দেখা গিয়েছিল। সেই ভিডিও-ও প্রকাশ করেছিল ভারতীয় সেনাবাহিনী। পাক সেনা অবশ্য তাদের দাবির সপক্ষে সেই রকম কোনও ফুটেজ প্রকাশ করতে পারেনি। তবে মৃত পাক সেনার ছবি প্রকাশ করেছে পাকিস্তান। তাঁর নাম বলা হয়েছে ল্যান্স নায়েক জাহিদ।