কাশ্মীর ইস্যুতে ভারত বিরোধিতা করতে বেশিরভাগ সময় ব্যয় করে দিয়েছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। সেই ফাঁকে নিজের দেশের অভ্যন্তরে মানুষ তাঁর বিরুদ্ধে ক্ষোভের আগুনে জ্বলতে শুরু করেছে, তা টের পাননি তিনি। শুক্রবার  সেই ক্ষোভেরই আভাস মেলে পাকিস্তানের রাজপথে। পাকিস্তানের কট্টরপন্থী ধর্মযাজক মৌলানা ফাজরুল রেহমান পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরানখানকে পদত্যাগের জন্য দুই দিনের সময় দিয়েছেন।  একপ্রকার হুমকি দিয়ে তিনি বলেছেন, ধৈর্যের পরীক্ষা না নিয়ে যেন সময়ের মধ্যেই ইমরান খান পদত্যাগ করেন। না হলে আরও বিপাকে পড়বেন তিনি। শুক্রবার পাকিস্তানের রাস্তায় ইমরান খানের পদত্যাগের দাবি নিয়ে আজাদি মার্চ নামে এক বিশাল বিক্ষোভ মিছিল হয়। কয়েক হাজার মানুষ সেই বিক্ষোভ মিছিলে অংশগ্রহণ করেন বলে জানা গিয়েছে। 


পাক সরকার বিরোধী পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য রেহমান দেশের অন্যান্য রাজনৈতিক নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করতে প্রস্তুত বলে জানিয়েছিলেন। শুক্রবার পাকিস্তানের বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতাদের সঙ্গে একটি বৈঠকও হয়। বৈঠকে পাকিস্তান পিপলস পার্টির প্রধান বিলাবল ভুট্টো, পাকিস্তান মুসলিম লিগ নওয়াজের  নেতা আশান ইকবাললের পাশাপাশি পাকিস্তানের অন্যান্য রাজনৈতিক দলের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন বলে জানা গিয়েছে। রেহমান জনান, গত বছর ২৫ জুলাই পাকিস্তানের সাধারণ নির্বাচনে অনেক কারচুপি হয়েছে। আমরা  এই নির্বাচনের ফলাফল মানি না। আমরা দেশের বর্তমান সরকারকেও মানি না বলে সাফ জানিয়ে দেন রেহমান। 


রেহমান বিক্ষোভ মিছিলে জানান, আমরা শান্তিপূর্ণ মিছিল করছি। তার অর্থ এই নিয়ে পাক সরকার আমাদের ধৈর্যের পরীক্ষা নেবে। যতক্ষণ না ইমরান খান পদত্যাগ করছেন, আমরা আমাদের বিক্ষোভ অব্যাহত রাখব। আমরা কোনও ধরনের সংঘর্ষ চাই না। আমরা দুই দিন সময় দিয়েছি, তার মধ্যে ইমরান খান পদত্যাগ না করলে, পরিস্থিতি আরও ঘোরাল হবে বলে রেহমান হুমকির সুরে বলেন।