কর্তারপুর করিডরের শিখ পুণ্যার্থীদের জন্য বড় ঘোষণা করলেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। গুরু নানকের ৫৫০ তম জন্মদিন উপলক্ষে পাকিস্তানের নানাকানা সাহিবের উদ্দেশে যেতে গেলে কোনও পাসপোর্ট লাগবে না। উপযুক্ত পরিচয়পত্র থাকলে তাঁরা অনায়াসে পাকিস্তানের অভ্যন্তরে কর্তারপুর করিডরে প্রবেশ করতে পারবেন। এই কর্তারপুর করিডরে প্রবেশ করতে গেলে  পাক নিয়ম অনুযায়ী ১০ দিন আগে থেকে নাম নথিভুক্ত করতে হয়। সেটাও করতে হবে না বলে পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান জানিয়েছেন। পাকিস্তানকে ২০ মার্কিন ডলার অর্থাৎ ১৪০০ টাকা প্রবেশমূল্য দেওয়ার প্রয়োজন নেই বলেও পাক প্রধানমন্ত্রীর তরফে জানানো হয়েছে। 

বৃহস্পতিবার ওয়াঘা সীমান্ত অতিক্রম করে ১,১০০ জন শিখ পুণ্যার্থী পাকিস্তানের নানাকানা সাহিবের কাছে গিয়েছেন বলে পাক প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে। পাক প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে, গুরু নানকের ৫৫০ তম জন্মদিবস উপলক্ষ্যে শিক্ষ পুণ্যার্থীরা একটা সোনার পালকিও  সীমান্ত অতিক্রম করে পাকিস্তানে প্রবেশ করেছে। তবে সোনার পালকির জন্য অতিরিক্ত কর আদায় করা হয়েছে বলেও পাক প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে। পাক প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে, পুণ্যার্থীদের জন্য আলাদা করে চিকিৎসাকেন্দ্র, খাবার ব্যবস্থা ও যানবাহনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। ১২ নভেম্বর গুরু নানকের ৫৫০ তম জন্মদিবস উপলক্ষ্যে পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান কর্তারপুর করিডরের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবেন। 


গুরু নানকের ৫৫০ তম জন্মদিবস উপলক্ষে পাকিস্তানের নানকানা সাহিবের উদ্দেশে রওনা দেন ভারতের প্রথম পুণ্যার্থীর একটি দল। ভারতের পুণ্যার্থীরা বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রার মাধ্যমে পাকিস্তানের নানাকানা সাহিবের উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছেন । পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী গোটা ঘটনার ওপর নজর রাখছেন বলে এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন। কর্তারপুর করিডর উদ্বোধনে  পাকিস্তানের তরফে  নভজোৎ সিং সিধুকে কর্তারপুর করিডরের উদ্বোধনে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। এক বিবৃতিতে নভজোৎ সিং সিধু সেই আমন্ত্রণ গ্রহণ করেছেন বলে জানিয়েছেন।