এক প্রয়াত বিখ্যাত বলিউড অভিনেতা প্রস্তাব দিয়েছিলেন ইমরান খান-কে। একটি পুরনো ভিডিও-য় এমনই দাবি করতে দেখা গিয়েছে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে। বর্তমানে ওই পুরনো ভিডিও-ই সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে। তাতে দেখা গিয়েছে একটি ভারতীয় টিভি শো-তে সরাসরি সাক্ষাৎকার দিচ্ছেন বর্তমান পাক প্রধানমন্ত্রী। আর সেখানেই তিনি স্বীকার করেন তাঁর সামনে খুলে গিয়েছিল মায়া নগরীর দরজা।

বর্তমানে ভারতে অধিকাংশ মানুষের কাছেই অমরান খানের ভাবমূর্তি অত্যন্ত ঘৃন্য হলেও, খেলোয়াড় জীবনে এবং তারপরেও কিন্তু ইমরান ভারতে নায়কের আসন পেতেন। মেদহীন সুপুরুষ চেহারা, তাঁর চোখ কুঁচকে দুষ্টু হাসিতে কাত হত অনেক ভারতীয় মহিলাই। আর তাঁর সেই লেডি কিলার ইমেজকেই নাকি বলিউডে ব্যবহার করতে চেয়েছিলেন এক বিখ্যাত বলিউড অভিনেতা তথা পরিচালক-প্রযোজক।

এই পুরনো সাক্ষাতকারে ইমরানকে বলতে শোনা গিয়েছে, অবিশ্বাস্য হলেও এটাই সত্যি। ইমরানের ভাষায় ওই উজ্জ্বল ভারতীয় অভিনেতার ছবি দেখার জন্য প্রত্যেকে অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করত। তিনিই ইমরানন খান-কে বলিউডের একটি ছবিতে অভিনয় করার প্রস্তাব দিয়েছিলেন। এমনকি অনুরোধ নিয়ে তিনি পৌঁছে গিয়েছিলেন ইংল্যান্ডেও। তাতে একেবারে বিহ্বল হয়ে পড়েছিলেন ইমরান।

পাক প্রধানমন্ত্রী প্রথমে ওই অভিনেতার নাম প্রকাশ করতে চাননি। তিনি জানান, ওই অভিনেতা এতই বড় মাপের, যে তিনি ইংরানকে প্রস্তাব দিয়েছিলেন বলাটাও তাঁর পক্ষে বিব্রতকর। কিন্তু পরে চাপাচাপি করায় ইমরান জানান ওই অভিনেতা আর কেউ নন, স্বয়ং দেব আনন্দ।

প্রস্তাব পেয়ে কী ভেবেছিলেন ইমরান? পাক প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছেন, তখন তিনি ক্রিকেটটা ভালো খেলতেন। তাই, প্রস্তাবটা তাঁর কাছে অত্যন্ত বিস্ময়কর লেগেছিল। সাক্ষাতকারে তিনি বলেন ভালো ক্রিকেটার মানে যে তিনি অভিনয়ও করতে পারবেন, সেই প্রত্যয় তাঁর হয়নি। কাজেই প্রস্তাবটি পেয়ে তিনি বেশ বিহ্বল হয়ে পড়েছিলেন।

তবে শুধু দেব আনন্দ একাই নন, আর একবারও ইমরানের সামনে অভিনয়ের সুযোগ এসেছিল। ভারতীয় বংশোদ্ভূত পরিচালক ইসমাইল মার্চেন্ট-ও একবার তাঁকে একটি ছবিতে অভিনয় করার প্রস্তাব দিয়েছিলেন বলে জানিয়েছেন ক্রিকেট থেকে রাজনীতির ময়দানে আসা পাক প্রধানমন্ত্রী। তবে সেই বারও তিনি অবাকই হয়েছিলেন। কারণ তিনি অভিনয় করতে পারেন না। কোনও দিন স্কুলের নাটকেও অভিনয় করেননি। তাই অভিনয়ের প্রস্তাব এলেও তিনি কখনই সম্মতি জানাননি।

ইমরান কানকে অভিনয় করার প্রস্তাব দেওয়ার কথাটা অবশ্য দেব আনন্দ নিজেও তাঁর আত্মজীবনী 'রোম্যান্সিং উইথ লাইফ'-এ লিখে গিয়েছেন।