উধাও হয়ে গিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের ভাগ্নে। আর তাকে খুঁজে বার করতেই নাকাল অবস্থা পাকিস্তানের পুলিশ বাহিনীর। আত্নগোপন করে রয়েছেন পাক প্রধানমন্ত্রীর ভাগ্নে, এমনটাই মনে করছে লাহোর পুলিশ।

হাসপাতালে হিংসার ঘটনায় হাসান নিয়াজিকে খুঁজছে পুলিশ। রোগী মৃত্যুর ঘটনায় হাসপাতালে ভাঙচুর চালানো শতাধিক আইনজীবীর মধ্যে ছিলেন ইমরানের ভাগ্নে নিয়াজিও। 

সিসিটিভি ফুটেজে দেখা গেছে কাল কোর্ট পরা আইনজীবীর দল হাসপাতালে ঢুকে ভাঙচুর চালায় ও সরকারি সম্পত্তির ক্ষতি করে। এই ঘটনায় হাসান নিয়াজিও অংশ নেন। একাধিক ছবি ও ভিডিওতে তার প্রমাণ মিলেছে। আইনজীবীদের এই আচরণ নিয়ে ইতিমধ্যে পাকিস্তান জুড়ে প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে। 

 লাহোরের পঞ্জাব ইনস্টিটিউট অফ কার্ডিওলজি (পিআইসি)-তে হামলার ঘটনা অবশ্য স্বীকার করেছেন নিয়াজি। এই হামলার জন্য নিজের ট্যুইটার অ্যাকাউন্টে ক্ষমাও চান তিনি।

 

এই হামলার ঘটনায় প্রথমে পুলিশ আইনজীবীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিলেনও তাতে নাম ছিল না নিয়াজির। এই বিষয়টি নিয়ে সামলোচনার ঝড় উঠলে পরবর্তী সময়ে তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হয়। তার বাড়িতেও তল্লাশি চালায় পুলিশ। যদিও তার খোঁজ পেতে ব্যর্থ হয় পুলিশ।