আগামী ২১ জুলাই তিন দিনের জন্য় মার্কিন সফরে যাচ্ছেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। আর সেখানে গিয়ে কোনও বিলাসবহুল হোটলে না থাকার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন তিনি। তার বদলে ওয়াশিংটনে পাক রাষ্ট্রদূতের বাড়িতেই তিন দিনের জন্য থাকবেন বলে জানিয়েছেন তিনি। 

মনে করা হচ্ছে দেশের চরম আর্থিক সংকটের পরিস্থিতিতে খরচ কিছুটা লাঘব করার জন্যই বিদেশ সফরে গিয়ে কোনও বিলাসবহুল হোটেলি তিনি থাকবেন না বলে জানিয়েছেন। সংবাদ সংস্থা সূত্রে খবর, ওয়াশিংটনে পাক রাষ্ট্রদূত আসাদ মাজিদ খানের বাড়িতেই তিন দিন কাটাবেন তিনি। তবে মার্কিন প্রশাসনের তরফ থেকে তাঁর এই প্রস্তাব মোটেও ভালভাবে গ্রহণ করা হয়েনি। কারণ প্রত্যেক বছর প্রায় কয়েকশো রাষ্ট্রনেতার আগমন ঘটে মার্কিন মুলুকে। আর কোনও দেশের প্রধানমন্ত্রী বা রাষ্ট্রপতি সেদেশে গেলে তাঁদের নিরাপত্তার দায়িত্ব থাকে মার্কিন সিক্রেট সার্ভিসের হাতে। তাঁরা এই বিষয়টিও নিশ্চিত করেন যে, কোনও রাষ্ট্রপ্রধানের নিরাপত্তার জন্য যাতে ওয়াসিংটনের ট্রাফিক ব্যবস্থায় বিঘ্ন না ঘটে। 

কংগ্রেসের রাজ্যে গোরক্ষকদের তান্ডব, কান ধরে ওঠ-বসে গো মাতার জয়ধ্বনি

তিন দিনের মার্কিন সফরে গিয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান মার্কিন আইন প্রণেতা, মিডিয়া, মার্কিন প্রশাসনিক আধিকারিক-এর সঙ্গে একাধিক বৈঠকে যোগদান করবেন বলে জানিয়েছেন। কিন্তু রাষ্ট্রদূত বাড়িতে এই বিশাল আয়োজন করার মতো পর্যাপ্ত জায়গা নেই বলে বৈঠকগুলি পাক দূতাবাসে করা হবে বলে জানা গিয়েছে। আর সেই কারণে ওয়াশিংটনের ট্রাফিক ব্যবস্থায় বিঘ্ন ঘটতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।