Asianet News Bangla

শারদ সম্মানে কে হবে সেরার সেরা, চুলচেরা বিচারে মণ্ডপে মণ্ডপে বিচারকমণ্ডলী

  • প্রকাশিত হয়েছে, এশিয়ানেট নিউজ শারদ সম্মান ২০১৯-এর ৫০-এর তালিকা
  • এরপর পালা বিচারকদের বাছাই পর্বের
  • মোট ২০টি পুজো কমিটি চূড়ান্ত লড়াইয়ে স্থান পাবে
  • একনজরে দেখে নিন কে কে রয়েছেন বিচারক মন্ডলীতে
Asianet News Sharad Samman 2019, its time to select top 20 Puja Mandap, here is the details
Author
Kolkata, First Published Sep 30, 2019, 3:20 PM IST
  • Facebook
  • Twitter
  • Whatsapp

বছর ঘুরে মা যে আবার এল ফিরে। শরতের নীল আকাশ, মাঠে ঘাটে কাশ ফুল জানান দিচ্ছে ঘরে মেয়ে আসার সময় হয়েছে। চারিদিকে সাজো সাজো রব। আর এই পুজোর আনন্দে সামিল হয়েছি আমরাও আপনাদের সঙ্গে। পুজোর  আনন্দে জুড়তে চলেছে এক নতুন নাম, এশিয়ানেট নিউজ শারদ সম্মান। ক্লাবের পুজো থেকে, ফ্ল্যাট বাড়ির পুজো বাদ যায়নি কেউই। নির্বাচিত পুজো গুলিকে যথোপযুক্ত সম্মানে ভূষিত করা হবে।

প্রথমবার শারদ সম্মান প্রদানের ইভেন্টের আয়োজন করে এশিয়ানেট নিউজ বাংলা যে সাড়া পুজো কমিটিগুলির কাছ থেকে পেয়েছে তা অভাবনীয়। এশিয়ানেট নিউজ শারদ সম্মান ২০১৯-এ তিন শতাধিক পুজো কমিটি নাম লিখিয়েছে। তবে এই বিপুল সংখ্যক পুজো কমিটিদেরকে শারদ সম্মানে ভূষিত করার মতো পরিস্থিতি আমাদের নেই। প্রত্যেকটি পুজোই তাঁদের চিন্তা-ভাবনা এবং পরিবেশনায় আমাদের চমকে দিয়েছেন। ইতিমধ্যে নির্বাচিত হয়েছে কলকাতার ৫০টি পুজো কমিটি। ৫০ টি পুজোর থেকে বাছাই করা হবে ২০টি পুজোকে। এছাড়া ওয়াইল্ড কার্ড সিলেকশনে কয়েকটি পুজো পাবে বিশেষ সম্মান। 

এই সম্মান তুলে দেবেন বিচারকগণ। আমাদের এই বিচারকমন্ডলীতে রয়েছেন অভিনেত্রী সানন্দা বসাক, তরুণ উদ্যেগপতি দেবজিৎ পাল, সেলিম শেখ, মণীষ চৌধুরী, সপ্তর্ষি রায়। সানন্দা অভিনয়ের পাশাপাশি চালাচ্ছেন বুটিকও। এছাড়া সবকিছুর সঙ্গে চলছে তাঁর সংসার ও বাচ্চা-কে সামলানোও। তরুণ উদ্যেগপতিদের মধ্যে রয়েছে দেবজিৎ পাল, তিনি কলকাতাতে একটি অন্যতম ক্যাফের মালিক। এছাড়া রয়েছেন শোভন যিনি 'বাংলার প্যাডম্যান' নামে পরিচিত। কম টাকায় তিনি বিলিয়ে দেন প্যাড। এছাড়া রয়েছেন সপ্তর্ষি রায়, ডেভলপমেন্ট প্র্যাকটিশনার। সমাজমূলক বহু কাজের সঙ্গে তিনি যুক্ত, মূলত পিছিয়ে পড়া মানুষদের নিয়ে তিনি কাজ করেন।

এছাড়াও বিখ্যাত প্রযুক্তি সংস্থা 'অ্যাডোবি'-র সঙ্গেও যুক্ত তিনি। যুক্ত রয়েছেন ইউনিসেফ-এর সঙ্গে। সেলিম শেখ যিনি মাত্র নয় বছর বয়সে কমিউনিটি ডেভলপার হিসেবে কাজ শুরু করেন। এছাড়া ছোটবেলা থেকেই নানা রকম সমাজমূলক কর্মকান্ডের সঙ্গে জড়িত। সংসদ-এ রাষ্ট্রপুঞ্জের প্রতিনিধির সামনে তিনি তুলে ধরেন তাঁর এলাকার মানুষের সমস্যা। বিল গেটসও সম্বর্ধনা জানিয়েছেন তাঁকে। মণীষ চৌধুরী যিনি চিফ এডিটর অফ কমিউনিটি নেটওর্য়াক। তাঁর সাংবাদিকতাতে উঠে আসে পিছিয়ে পড়া সমাজের মানুষের এগিয়ে যাওয়ার কাহিনি। এছাড়া মাদকাসক্ত, সেক্স ট্রাফিকিং-এর কাহিনি। 

এই সকল সম্মানীয় বিচারক মন্ডলী নির্বাচন করবেন কারা সেরা এবং কে সেরার সেরা।

Follow Us:
Download App:
  • android
  • ios