ভারতীয় ক্রিকেটে আরও এক প্রত্যাবর্তনের দিন আসতে আর মাত্র কয়েক ঘণ্টার অপেক্ষা। তারই মাঝে সেজে উঠছে ইডেন গার্ডেন্স। সব কিছু শেষ বারের মতন ফের একবার ক্ষতিয়ে দেখে নেওয়া হচ্ছে ইডেনে। পিচ কেমন হবে। কি কি আয়োজন হবে। কি ভাবে সেজে উঠবে গোটা স্টেডিয়াম। সেই প্রস্তুতি চলছে জোর  কদমে। মঙ্গলবার ভারত-বাংলাদেশ ঐতিহাসিক টেস্ট ম্যাচের আগেও চললো তোর জোর। টিকিটের চাহিদা নিয়ে একটা চাপা উত্তেজনা থাকলেও কিন্তু এই মুহূর্তে ইডেন টেস্ট হাউসফুল। মঙ্গলবার ইডেনে দফায় দফায় বৈঠকে ব্যাস্ত ছিলেন সিএবির কর্মকর্তারা। একই সঙ্গে পুলিশের সঙ্গে ও বাংলাদেশ দূতাবাসের সঙ্গেও আলাদা করে বৈঠক করে শেখ হাসিনার জন্য সব রকমের ব্যবস্থা কিন্তু সেরে ফেললো ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন অব বেঙ্গলের কর্মকর্তাকরা। ব্যক্তিগত কাজের জন্য মঙ্গলবার ইডেন পরিদর্শনে আসেননি বিসিসিআই সভাপতি সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। সূত্রের খবর বোর্ডের কাজে তিনি মুম্বইয়ে আছেন। পাশাপাশি ইডেনে দেওয়া হল মেম্বারশিপ টিকিটও। পাশাপাশি টিকিট নিলেন বাংলার সব স্তরের ক্রিকেটাররা।

 

ইডেনের এই ম্যাচকে স্মরণীয় করে রাখতে হবে। তাই ইডেনে প্রায় সব সময় হাজির থাকছেন ভারতের প্রথম পিঙ্ক বল টেস্টের ম্যাসকট টিঙ্কু-পিঙ্কুও। তবে গত দুদিন ধরে বেশ পরিশ্রম চলায় মঙ্গলবার বিকেলে দেখা যায়নি টিঙ্কুকে। তিনি ছিলেন বিশ্রামেই। একাই ইডেন চত্বর দাপালেন পিঙ্কু। একই সঙ্গে মঙ্গলবারের ইডেনে ছিল একটি চাপা উত্তেজনা। বাইরে মানুষের ঢল। গ্যালারিতে ক্ষুদে ক্রিকেটাররা এদিন ঘুড়তে এসেছিলেন স্বপ্নের ইডেন গার্ডেন। মঙ্গলবার সবার লক্ষ্য ছিল একটাই যদি একবার মাঠ পরিদর্শন করতে বা অনুশীলন করতে আসেন বিরাট কোহলি ও তাঁর দলের কিছু সদস্যরা। তবে এদিন শহরে পা রাখলেও ক্রিকেট অনুরাগীদের বেশ কিছুটা হতাশই করলেন ভারতীয় দলের অধিনায়ক, সহ-অধিনায়করা। একই সঙ্গে শহরে ইতিমধ্যেই পৌঁছে গিয়েছেন ভারতীয় কোচ রবি শাস্ত্রী। পাশাপাশি এসে পড়েছে বাংলাদেশের গোটা দলও। বুধবার সকাল থেকেই ফের ইডেনে শুরু হয়ে যাবে তোরজোর। সকালে অনুশীলন করবে বাংলাদেশ দল ও বিকেলে মাঠে পা রাখবেন বিরাটরা। গোলাপি বলের এই বিপ্লবে এদিন সেই কারণে সব ঠিক-ঠাক ব্যবস্থাও সেরে রেখেছে সিএবি।

 

মঙ্গলবার পিডব্লুর থেকে সিএবি পেয়ে গিয়েছে ফিট সার্টিফিকেটও। তাঁর পাশাপাশি ইডেনে কোথায় বসবেন শেখ হাসিনা। কোথায় থাকবেন বাকি গেস্টরা সেটাও ঠিক হয়ে গিয়েছে ইতিমধ্যে। আর সেটা পরিদর্শন করে দেখলো কলকাতা পুলিশও। একই সঙ্গে অনুষ্ঠানের তালিকাও পুলিশকে আলাদা ভাবে জানিয়ে দিয়েছে সিএবি। বাংলা ক্রিকেট সংস্থার তরফ থেকে সব কিছু মিলিয়ে অভিষেক ডালমিয়া বলেন, 'ভারতীয় ক্রিকেটের অন্যতম একটা বড় ম্যাচ। তাই এত কিছুর আয়োজন। পুলিশের সঙ্গে বৈঠক হয়েছে। পিডব্লুডির সঙ্গেও বৈঠক হয়েছে। সব অনুষ্ঠানই এক রকম আছে। শুধু মাত্র পরিবর্তন হয়েছে কিছু সময়ে। বেশি কিছু পরিবর্তন করতে হয়নি। ম্যাচ সুষ্ঠ ভাবেই অনুষ্ঠিত হবে আশা রাখি।' রঙয়ের কাজ, ওয়াল পেন্টিংয়ের কাজ শেষ হয়ে গিয়েছে ইডেনে। মঙ্গলবার রাতে ইডেনের গ্যালারিও মুড়ে ফেলা হয়েছে গোলাপি আলোয়। একই সঙ্গে ইডেনের বাইরে ব্যাবহার করা হয়েছে গোলাপি আলো। সেই সঙ্গে পিঙ্ক বল টেস্টের ঢাকে কাঠি। এবার শুধু অপেক্ষা বিরাটদের সাদা জার্সিতে পিঙ্ক বল হাতে মাঠে নামার।