ফ্ল্যাশিং মিডোয় তারকা পতন অব্যাহত। নাওমি ওসাকা, নোভাক জোকোভিচ, ওয়ারিঙ্কার পর এবার যুক্তরাষ্ট্র ওপেন থেকে বিদায় বিশ্ব টেনিসের তারকা রজার ফেডেরারের। কোয়ার্টার ফাইনালে পাঁচ সেটের লড়াইতে হার মানতে হল ২০টি গ্র্যান্ড স্ল্যামের মালিককে। ম্যাচের ফল ৩-৬,৬-৪,৩-৬,৬-৪, ৬-২। এবারই প্রথম ইউএস ওপেনের সেমিফাইনালে পৌছালেন দিমিত্রভ। 

ফিটনেস যে তাঁর পারফরম্যান্সে অল্প অল্প করে থাবা বসাচ্ছে সেটা বোঝাস গেল কোয়ার্টার ফাইনালের লড়াইতে। চতুর্থ সেটের পর মেডিক্যাল টাইম আউট নিতে হয় রজারকে। যদিও ম্যাচের পর ফিটনেস নিয়ে প্রশ্ন করতে ফেডেরার কার্যত চোট প্রসঙ্গ এড়িয়ে যান, বলেন "এই সময়টা দিমিত্রভের, আমার শরীরের সময় নয়। আমি নিজের সবটুকু দিয়ে চেষ্টা করেছি।" পাঁচ বার ফ্লাশিং মিডোয় দাঁড়িয়ে হাতে ট্রফি তুলে ধরেছিলেন সুইস তারকা। কিন্তু ২০০৮ এর পর থেকে সেই ছবি আর দেখা যায়নি।

ফেডারারকে হারিয়ে প্রথমবার ইউএস ওপেনের সেমিফাইনালে পৌছালেন বিশ্বের ৭৮ নম্বর টেনিস খেলোয়াড়। এর আগ তিনি ফেডেরারকে একবারও হারাতে পারেননি। কিন্তু ২০১৯ এর ফ্ল্যাশিং মিডো তাঁর জন্য অন্য এক রূপকথা সাজিয়ে রেখেছিল। ২৮ বছরের খেলোয়াড় বলছেন, " আমি খুশি, প্রথম থেকে নিজেক বলেছি, ম্যাচে টিকে থাকতে হবে, হারিয়ে গেলে চলবে না। রজারের বিরুদ্ধে এমন কিছু শট মেরেছি, যা ওঁর বিরুদ্ধে মারাটা খুব কঠিন।" ফেডেরারকে হারিয়ে এবার সেমিফাইনালে ডানিল মেদভেদেভের বিরুদ্ধে নামবেন দিমিত্রভ। 

এবারের ইউএস ওপেন থেকে একে একে তারকার বিদয় হয়েছে। মহিলাদের শীর্ষ বাছাই নাওমি ওসাকা ছিটকে গেছেন, পুরুষদের এক নম্বর তারাক নোভাক জোকোভিচ চোটের জন্য মাঝ পথে নিজেকে সরিয়ে নিয়েছেন। কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে বিদায় নিয়েছেন ওয়ারিঙ্কাও। তারকাদের ব্যাটন এখন দুজনের হাতে। মহিলা বিভাগে সেরেনা উইলিয়ামস ও পুরুষ বিভাগে রাফায়েল নাদাল। কোয়ার্টার ফাইনালে দাপটের সঙ্গে খেলে সেমিফাইনালে পৌছে গেছেন সেরেনা। চীনের প্রতিপক্ষ ওয়াঙ্গকে স্ট্রেট সেট, ৬-১, ৬-০তে ওড়ালেন সেরেনা। একই সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্র ওপেনে ১০০টি ম্যাচ জেতার নজির গড়লেন সেরানা।