ভারতীয় অথ্যাথলেটিক্সের মান উন্নয়নে একাধিক কড়া দাওয়াই নিয়ে কাজ শুরু করেছে অ্যাথলেটিক্স ফেডারেশন অব ইন্ডিয়া। আরও প্রযুক্তি নির্ভর হয়ে কাজ শুরু করেছে তারা। আর সংস্থার এই কড়া মোনভাবের জেরে শনিবার জুনিয়র ন্যাশনাল থেকে ৯৩ জন ক্রীড়াবিদকে বাইরের রাস্তা দেখিয়ে দেওয়া হল। কারণ একটাই বয়েস কমিয়ে প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়া। হরিয়ানা রাজস্থান ও উত্তর প্রদেশের অ্যাথলিটদের মধ্যে এই প্রবণতা সব থেকে বেশি দেখা যাচ্ছে। 

আরও দেখুন - আগামী বছর ভারতে ফুটবল বিশ্বকাপ, দেখুন লোগো প্রকাশের ভিডিও

অ্যাথলেটিক্স ফেডারেশন অব ইন্ডিয়া এবার বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে ক্রীড়াবিদদের রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়া শুরু করেছে। সব জুনিয়র অ্যাথলিটের আঙ্গুলের ছাপ সহ তাদের বিভিন্ন পরিসংখ্যান নথিবদ্ধ করা হচ্ছে। এি সব পরিসংখ্যান এক জায়গায় করে প্রত্যেক ক্রীড়াবিদকে দেওয়া হবে একটি আইকার্ড, তাতে থাকবে সেই ক্রীড়াবিদের রেজিস্ট্রেশন নাম্বার। ক্রীড়াবিদের সমস্ত তথ্য তুলে রাখা হবে কম্পিউটারে। যাতে পরবর্তী কালে কেউ বয়েস ভাঁড়িয়ে খেলার চেষ্টা করলে  সহজেই তাকে ধরে ফেলা যায়। পাশাপাশি জুনিয়র স্তরে নথিবদ্ধ ক্রীড়াবিদদের বয়েস পরীক্ষা করা হবে। 

আরও পড়ুন - মোহনবাগান কোচিং টিমে এবার ব্যারেটো, ছাত্র হয়ে বাগানে সবুজ তোতা

ভারতীয় অ্যথলেটিক্স সংস্থার এই কড়া মনোভাবের জেড়েই এবারের জুনিয়র ন্যাশনাল থেকে ৯৩ জন ক্রীড়াবিদকে সরে যেতে হয়েছে। আরও কিছু ক্রীড়াবিদকে পাঠানো হয়েছে স্ক্রটনির জন্য। দেশের অ্যাথলেটিক্স সংস্থার সভাপতি জে সুমারিওয়ালা জানিয়েছেন তাঁদের একটাই লক্ষ্য, বয়েস ভাঁড়ানোর হাত থেকে ক্রীড়াবিদদের রক্ষা করা। কারণ ছোট বয়েসে অনেক ক্রীড়াবিদ নিজেদের অজান্তেই এই ফাঁদে পরে যান। বয়েস ভাঁড়ানোর পাশাপাশি ডোপিং নিয়েও কড়া ব্যবস্থা গ্রহণের পথে ভারতীয় অ্যাথলেটিক্স সংস্থা। কোনও ক্রীড়াবিদের কাছে সিরিঞ্জ পাওয়া গেলে তাকে সঙ্গে সঙ্গে সাসপেন্ড করা হবে। জুনিয়র ন্যাশনালসে এই জন্য দুজন অ্যাথলিটকে বাইরের রাস্তা দেখিয়ে দেওয়া হয়ে। দেশে বিভিন্ন মিটে এই বিষয়ে কড়া নজর রাখছে দেশের অ্যাথলেটিক্স সংস্থা। জানালেন সভাপতি। 

আরও পড়ুন - কলিঙ্গ জয় করে অলিম্পিক যাচ্ছে ভারতীয় পুরুষ ও মহিলা হকি দল