বিচারপতি এস আব্দুল নাজির ও বিচারপতি এমআর শাহর ডিভিশন বেঞ্চে শুক্রবার এজিআর নিয়ে মামলা রায় ঘোষনা করেছেন বিচারপতি অরুণ মিশ্র। টেলিকম দপ্তরগুলিকে তাদের সমস্ত বকেয়া সরকার-কে মিটিয়ে দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।  এয়ারটেল-সহ ভোটাফোন, বিএসএনএল-এর মতো মোট ১৫টি সংস্থার থেকে মোট ১ লক্ষ ৪৭ হাজার কোটি টাকা বকেয়া রয়েছে বলে জানা গিয়েছে। শুধু লাইসেন্স বাবদ বকেয়া রয়েছে ৯২ হাজার ৬৪২ কোটি টাকা। এই সমস্ত বকেয়া ২০ ফেব্রুয়ারির মধ্যে শোধ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন- বহু শূণ্যপদ ডাক বিভাগে, আবেদন জমা দেওয়ার শেষ তারিখ ২৬ ফেব্রুয়ারি

গত বছরে ডিসেম্বরে ভোডাফোন আইডিয়া লিমিটেড-এর ক্ষতির পরিমান ৬ হাজার ৪৩৯ কোটি টাকা। সেপ্টেম্বর ২০২০-তে লোকসান হয়েছে ৫০ হাজার ৯২২ কোটি টাকা। ফলে এত কম সময়ের মধ্যে বকেয়া পরিশোধ করা ভোডাফোন আইডিয়া লিমিটেড-এর পক্ষে প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়েছে বলে মনে করছেন একাংশ। এমনকি ভোডাফোন বন্ধ হয়ে যাওয়ার মত আশঙ্কাও তৈরি হয়েছে বলে মনে করছেন। ভোডাফোনের চিফ এক্সিকিউটিভ নিক রিড জানিয়েছেন, এজিআর নিয়ে আদালতের পর ভারতে ভোডাফোনের অবস্থা সঙ্কটজনক।

আরও পড়ুন- চাঁদে যাওয়ার সুযোগ দিচ্ছে নাসা, সঙ্গে মিলবে মোটা বেতনও

কেন্দ্রের এমন নির্দেশ পাওয়ার পর ভারতী এয়ারটেল সংস্থা ঋণ শোধ করতে রাজি। তবে তার জন্য তারা ২০ ফেব্রুয়ারি অবধি সময় চেয়ে নিয়েছে। কেন্দ্রের টেলি যোগাযোগের নির্দেশের পর এয়ারটেল জানিয়েছে, তারা ২০ ফেব্ররয়ারির মধ্যে ১০ হাজার কোটি টাকা জমা দেবে। আর বাকি বকেয়া দেবে ১৭ মার্চের আগে। এদিকে ভোডাফোন আডিয়ার ৪৫.৩৯ শতাংশ শেয়ার রয়েছে বিট্রেনের ভোডাফোনের হাতে। তাদের মতে সরকারের তরফ থেকে কোনও ছাড় না পেলে তারা ভারতে ব্যবসা বন্ধ করে দেবে।