বর্তমান সময়ে, এমন কিছু ঘটনা ঘটে যা শুনলে চমকে উঠতে হয়। মনে হয় অবিশ্বাস্য। সম্প্রতি মার্কিন য়ুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাসে এমন এক ঘটনা ঘটেছে, যা শুনলে অবাক হতেই হয়। শুধুমাত্র আইসক্রিম চাটার অভিযোগে ডি'এড্রিয়েন অ্যান্ডারসন নামে এক ব্যক্তির কারাদণ্ড ও মোটা টাকা জরিমানা হয়েছে। একই সঙ্গে বিনা বেতনে কাজও করতে হবে তাঁকে।

বর্তমান সময়ে প্রত্যেক মানুষের জীবনেই সোশ্যাল মিডিয়ায় বিরাট ভূমিকা। রাণু মণ্ডলের মতো অনেকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ভিডিও ভাইরাসল হয়ে বিখ্যাত হয়ে গিয়েছেন। কিন্তু, ডি'এড্রিয়েন-এর বানানো একটি মজার ভিডিও ভাইরাল হয়েই তাঁর জীবনে এই বিপর্যয় নেমে এসেছে।

জানা গিয়েছে, গত বছর এক ডিপার্টমেন্টাল স্টোরে বাজার করতে গিয়ে স্রেফ মজা করার জন্যই একটি ভিডিও তৈরি করেছিলেন অ্যান্ডারসন। ভিডিওটিতে তাঁকে স্টোরের ফ্রিজ খুলে 'ব্লু বেল' সংস্খার একটি আইসক্রিমের বড় জার বের করতে দেখা গিয়েছিল। তারপরই তাঁকে সেই জারের ঢাকনি খুলে তার থেকে আইসক্রিম চেটে খেতে দেখা গিয়েছিল। চাটার পর ওই জারটি সে আবার ফ্রিজে রেখে দিয়েছিল।

তাঁর মজা করে বানানো এই ভিডিওটি ফেসবুক ও অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়ায়  ভাইরাল হয়ে যায়। তাতে 'ব্লু বেল' সংস্থার আইসক্রিমের ব্যবসায় নেতিবাচক প্রভাব পড়া শুরু হয়। অনেকেই ব্লু বেল-এর বিশেষ করে ভ্যানিলা আইসক্রিম কেনা বন্ধ করে দেন। বিক্রি কমতে কমতে ক্রমে পরিস্থিতি এমন দাঁড়ায় যে, সংস্থাটি বাজার থেকে তাদের সব ভ্যানিলা আইসক্রিম তুলে নিতে বাধ্য হয়। বিশাল ক্ষতির মুখে পড়ে সংস্থাটি।

ঘটনা এখানে থেমে থাকেনি। ব্লু বেল সংস্থা তাদের এই ক্ষতির সম্পূর্ণ দায় চাপায় ডি'এড্রিয়েন অ্যান্ডারসন-এর উপর। অ্যান্ডারসনের বিরুদ্ধে খাদ্য বিকৃতির অভিযোগ এনে সংস্থা একটি মামলা দায়ের করে। সম্প্রতি আদালত শুনানির শেষে তাকে দোষী সাব্যস্ত করেছে। তাঁকে ৩০ দিনের কারাদণ্ডের সাজা দিয়েছে। তার উপর অ্যান্ডারসনকে এক হাজার ডলার জরিমানাও দিতে হবে। তবে অ্য়ান্ডারসনের পক্ষে সবচেয়ে অস্বস্তির হল যে দোকানে তদিনি ওই অপকর্ম করেছিলেন, সেই দোকানেই তাকে বিনামূল্যে ১০০ ঘন্টা কাজ করতে হবে বলে জানিয়ে দিয়েছে আদলত।