নিজের বাড়ির স্বপ্ন সকলেই দেখেন। সেই স্বপ্ন পূরণ করতে পেরে জীবন স্বস্তিতে কাটাতে পারবেন ভেবেছিলেন কলোরাডোর এক দম্পতি। অলক্ষ্যে হয়তো হাসছিল নিয়তি। বাড়ি কেনার কয়েক মাসের মধ্যেই টের পেলেন তাঁদের সঙ্গেই বাড়িতে রয়েছে আরও অনেকেই। 

প্রতিবেশীর অর্ভ্যত্থনা জানাবেন তাঁদের নতুন অতিথিকে। এমনটাই হয়তো ভেবেছিলেন ওই দম্পতি। কিন্তু দেখলেন তাদের স্বাগত জানাতে এসেছে সাপ। ৫ বা ১০টি নয়, একেবারে প্রায় ১৫০টি সাপ ঘুরে বেড়াচ্ছে বাড়িতে।

আরও পড়ুন: রহস্যের উন্মোচন করলে খোদ মোদী, নারী দিবসে মহিলাদের উৎসর্গ করলেন সোশ্যাল মিডিয়া

২০১৮ সালের নভেম্বরে কলোরাডোর রুশমোর স্ট্রিটে নতুন বাড়ি কেনেন সায়েনন ম্যাকফেডেন এবং রইস রবিন্স। প্রথমের দিকে বাড়িতে শান্তিতেই কাটাচ্ছিলেন তাঁরা। কিন্তু বসন্ত যেতেই গৃহশান্তি দূর হতে শুরু করে। দেখতে পান ঘরের যেখানে, সেখানে বেরিয়ে পড়ছে সাপের দল। যত তাপমাত্রা বাড়তে থাকে বাড়ির যত্রতত্র আনাগোনা শুরু হয় সর্পবাহিনীর। বাথরুম থেকে বসার ঘর, সবখানেই ফণা উঁচিয়ে রয়েছে সর্পবাহিনী। 

এরপরই বাড়িটি পরীক্ষা করাতে এক সর্প বিশেষজ্ঞকে ডেকে আনে ওই দম্পতি। পরীক্ষা করে দেখা যায় বাড়ির কাঠের মেঝের নিচে রয়েছে সাপের গর্ত। যেখানে বাস কমপক্ষে ১৫০টি সাপের। বিভিন্ন প্রজাতির বিষধর সাপের বাস রয়েছে ওই বাড়িতে। 

আরও পড়ুন: ছাত্রের বাবার ধরা পড়েছে করোনা, আতঙ্কে নয়ডায় বন্ধ হল স্কুল, বাতিল পরীক্ষা

কলোরাডোতে বেশ গরম পড়ে। ফলে সাপগুলি বেড়িয়ে পড়ে। জানা গেছে, দুজনে বেশ সস্তায় কিনেছিলেন বাড়িটি। সেই সময় কিছুই টের পাননি তাঁরা। এদিরে সাপের হাত থেকে রেহাই পেতে শেশপর্যন্ত পুরো বাড়ির কাঠের মেঝে পরিবর্তন করেন তাঁরা। যার জন্য প্রায় ৬ লক্ষ টাকা খরচ হয় দম্পতির।