চলতি সপ্তাহের শুরুতেই এসেছিল সুখবর। মার্কিন ওযুধ প্রস্তুতকারক সংস্থা ফাইজার জানিয়েছিল তাদের কোভিড ভ্যাকসিন ৯০ শতাংশের বেশি কার্যকর বলে প্রমাণিত হয়েছে। তারপর, ভারত সরকারের সঙ্গে এই সংস্থার ভ্যাকসিন চুক্তির বিষয়ে কথা চলছে বলে জানা গিয়েছিল। কিন্তু, আদৌ সেই ভ্যাকসিন নেওয়া ঠিক হবে ভারতের? শুক্রবার সেই প্রশ্ন   উঠে গেল। ফাইজারের ক্লিনিকাল ট্রায়ালের তৃতীয় পর্যায়ে অংশ নেওয়া স্বেচ্ছাসেবীরা ভ্যাকসিনটির কিছু মারাত্মক পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া কথা ফাঁস করে দিয়েছেন।

ডেইলি মেইলের একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ফাইজারের করোনভাইরাস ভ্যাকসিনের ক্লিনিকাল ট্রায়ালের তৃতীয় পর্যায়ে ছয়টি দেশের ৪৩,৫০০ জনেরও বেশি মানুষ স্বেচ্ছাসেবী হিসাবে অংশ নিয়েছিলেন। তাদের মধ্যে বেশ কয়েকজন জানিয়েছেন প্রথম ভ্যাকসিন ডোজটি নেওয়ার পরই তাঁরা 'মারাত্মক হ্যাংওভার' হয়েছে। সঙ্গে মাথা ব্যথা, জ্বর এবং পেশী ব্যথার মতো পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াও দেখা দিয়েছে। দ্বিতীয় ডোজের পর এই উপসর্গগুলি আরও বেশি দেখা দিয়েছিল। তবে, স্বেচ্ছাসেবীরা বলেছেন, কয়েকদিনের মধ্যেই এই সমস্যাগুলি দূরও হয়ে গিয়েছে।

তবে এই সমস্যাগুলি সত্ত্বেও শুধু ভারতই নয়, অনেক দেশই তাদের সঙ্গে ভ্যাকগসিন চুক্তি করতে এগিয়ে আসছে. ব্রিটেন, আমেরিকার মতো বেশ কয়েকটি দেশ আগেই চুক্তিবদ্ধ ছিল। ইসরাইলের স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, শুক্রবারই ফাইজার সংস্থার সঙ্গে সেই দেশ একটি অস্থায়ী চুক্তি সাক্ষর করবে। চুক্তি অনুযায়ী জানুয়ারী থেকেই ইসরাইলে করোনাভাইরাস ভ্যাকসিনের ৮০ লক্ষ ডোজ সরবরাহ করা শুরু করবে। এতে করে ইসরাইলেকর ৪০ লক্ষ মানুষ অর্থাৎ সেই দেশের মোট জনসংখ্যার প্রায় অর্ধেকই ভ্যাকসিন পাবেন। এরমধ্যেই এই পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার খবর ফাঁস হল।