করোনাভাইরাসের সংক্রমণের জন্য বন্ধ রয়েছে স্কুল কলেজ। কিন্তু চালু রয়েছে পঠনপাঠন। এই অবস্থায় পড়ুয়াদের ভরসা অনলাইন ক্লাস। এদেশে মাঝে মাঝেই অনলাইন ক্লাসের করুণ ছবি প্রকট হয়। একই অবস্থা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রেও। সদ্যোই ক্যালিফোর্নিয়ার একটি ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে, যেখানে দেখা যাচ্ছে স্কুলের হোমওয়ার্ক করার জন্য দুই মার্কিন ছাত্রীকে ভরসা করতে হচ্ছে স্থানীয় একটি রোস্তোরাঁরা ফ্রি ওয়াইফাইয়ের ওপর। 


ইন্টাগ্রাম ব্যবহারকারী মেস-মাসি৯৯ মার্কিন দুই ছাত্রীর ছবি শেয়ার করেছেন। সেখানে টোক বেল নামের একটি ফাস্ট ফুড রেস্তোরার সামনে বসেই নিজেদের ল্যাপটপে স্কুলের কাজ করছে দুই পড়ুয়া। একই সঙ্গে সেই নেটিজেন লিখেছেন, রাস্তার ধারে বসে হোমওয়ার্ক করার ছবিটি তাঁর মা তাঁকে পাঠিয়েছেন। দুজনেই  পড়ুয়া। তাঁরা ফ্রি ওয়াইফাই ব্যবহার করে স্কুলের কাজ করতে চেয়েছিলেন। তাই তাঁরা রাস্তার ধারের রেস্তোরাঁ সংলগ্ন জায়গাটি বেছে নিয়েছিলেন। একই সঙ্গে তিনি আরও বলেছেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে অনেকেই বাড়িতে বসে ওয়াইফাইের মাধ্যমে অফিসের গুরুত্বপূর্ণ কাজ সারেন। কিন্তু কলেজ পড়ুয়াদের ক্ষেত্রে একটি নির্ভরযোগ্য ওয়াইফাইস অ্যাক্সেস থাকা প্রয়োজন। আর তা যদি না হয় তাহলে তাঁদের সমস্যায় পড়তে হবে। 

 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 

My mom sent me this picture today. These 2 young girls were looking for a place with WiFi to do their school work so they sat near Taco Bell to connect to the free WiFi. A lot of us don’t have to worry about having a proper WiFi connection or a quiet place to work from home. Every student from preschool through college should have free access to reliable WiFi especially now. What can we do as a community to pull together for students who need something as simple as WiFi in order to succeed? Please share and tag people in our community who can help. UPDATE: THE GIRLS WERE IDENTIFIED BY THEIR SCHOOL DISTRICT AND GIVEN HOTSPOTS! I’M SURE THERE ARE OTHER CHILDREN IN NEED, I AM HOPING THEY ALL GET THE TOOLS THEY NEED! IF LOCAL BUSINESSES WOULD LIKE TO DONATE THEIR SPACE TO SET UP OUTDOOR INTERNET CAFES, PLEASE LET ME KNOW. I WOULD LOVE TO HELP RALLY UP SUPPLIES AND MAN POWER! I ENCOURAGE EVERYONE TO REACH OUT TO YOUR OWN COMMUNITIES TO HELP STUDENTS IN YOUR AREA PLEASE CHECK OUT THE UPDATE ON THE FALSE POLICE ALLEGATIONS MADE BY A REPOSTER OF THIS PICTURE! DO HOMEWORK BEFORE YOU DONATE TO ANYONE. UNFORTUNATELY THERE IS QUESTIONABLE BEHAVIOR. HOPING THAT THOSE HELPING HAVE GOOD INTENTIONS. 😞 Although I appreciate it, please don’t follow my page. It’s only public for now because of this picture but I will be erasing all new followers. #freewifi #salinas #equityineducation #socialinjustice #socialinequality #educationmatters #wififorall #educationforall #salinascalifornia #digitaldivide #cometogether #communitylove #ittakesavillage #saveourkids #dosomething

A post shared by ✌️ ❤️ 😃 (@ms_mamie89) on Aug 25, 2020 at 1:51pm PDT


সোশ্যাল মিডিয়ায় এই ছবি প্রচার হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে নেটিজেনরা তা নিয়ে মন্তব্য করতে শুরু করে। এরপরেই নড়েচড়ে বসে স্থানীয় প্রশাসন। দুই পড়ুয়ার বাড়িতেই ইন্টারনেট হটস্পট সরবরাহ করা হয়। শুধু জেলা প্রশাসনই নয় দুই পড়ুয়ার পাশে দাঁড়িয়েছেন নেটিজেনরাও। একটি অনলাইন সংস্থা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের দুই পড়ুয়ার জন্য ইতিমধ্যেই ১ লক্ষ ৪০ হাজার মার্কিন ডরাল সংগ্রহ করতে সক্ষম হয়েছে। নেটিজেনদেরও একটি মাত্র উদ্দেশ্য দুই পড়ুয়া যেন মনোযোগের সঙ্গে বাড়িতে বসেই স্কুলের পড়া সারতে পারে।