সংযুক্ত মোর্চার অন্যতম মুখ তথা প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরী কি করোনা আক্রান্ত? এবার রাজ্য রাজনীতির অন্যতম চরিত্রকে ঘিরেই করোনার ছায়া দেখা দিল। সোমবার এক দলীয় প্রচার-সভায় যোগ দিতে এসেও, শেষ পর্যন্ত এলেন না তিনি। বদলে নিভৃতবাসে গেলেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরী। ভোটের মুখে মুর্শিদাবাদ জেলায় ক্রমেই বাড়ছে করোনা আতঙ্ক। ইতিমধ্য়েই জেলার দুই প্রার্থীর মৃত্যু হয়েছে।
এবার অধীররঞ্জন চৌধুরীকে ঘিরেও আশঙ্কার মেঘ জমা হচ্ছে।

এদিন বিকেলে, কান্দি মহকুমার অন্তর্গত ভরতপুর বিধানসভা কেন্দ্রে সংযুক্ত মোর্চা সমর্থিত কংগ্রেস প্রার্থী অমরেশ চট্টোপাধ্যায়ের সমর্থনে অধীর চৌধুরীর একটি সভা ছিল। নির্ধারিত সময়সূচি মেনেই দলীয় সভায় যোগদান করতে এসেছিলেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি। কিন্তু শেষ পর্যন্ত সভায় আসেননি তিনি। বদলে, তাঁর নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা রক্ষীরা সভায় এসে স্থানীয় নেতৃত্বকে জানায়, শারীরিক অসুস্থতার কারণে অধীরকে চিকিৎসকরা কয়েকদিন হোম আইসোলেশন এ থাকার পরামর্শ দিয়েছেন।

প্রচারে অধীর, সংস্পর্শে এসেছেন অনেক করোনা আক্রান্ত ব্যক্তিরই

কংগ্রেসের দলীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, সম্প্রতি নির্বাচন প্রচার উপলক্ষ্যে অধীর চৌধুরী বহু মিটিং-মিছিল করেছেন। গত কয়েকদিনে এমন অনেক প্রার্থী, কর্মী, সমর্থকদের সংস্পর্শে এসেছেন  তিনি, যাঁরা পরবর্তীকালে কোভিড পজিটিভ হিসাবে সনাক্ত হয়েছেন। এমনকী করোনা যে সামশেরগঞ্জ বিধানসভা কেন্দ্রের কংগ্রেসের প্রার্থী রেজাউল হকের প্রাণ কেড়েছে, তারও সংস্পর্শে এসেছিলেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি। এমন পরিস্থিতিতে স্বাভাবিকভাবেই প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতির করোনা আক্রান্ত হওয়ার জোর সম্ভাবনা রয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। তাই পরীক্ষারও আগে তড়িঘড়ি সিদ্ধান্ত নিয়ে তাঁকে হোম আইসোলেশনে পাঠানো হয়েছে।

এই বিষয়ে, ভরতপুর বিধানসভা কেন্দ্রের কংগ্রেস প্রার্থী অমরেশ চট্টোপাধ্যায় জানিয়েছেন,গত বছর লকডাউনের সময় থেকে অধীররঞ্জন চৌধুরী সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন, সকল বিপদকে তুচ্ছ করে। চলতি নির্বাচনে সভা-সমিতি করেছেন। ফলে করোনা আক্রান্তদের সংস্পর্শে আসার ভাল সম্ভাবনা রয়েছে তাঁর। সংক্রমিতও হয়ে থাকতে পারেন। এদিন তিনি শারীরিকভাবে অসুস্থ বোধ করেন। তাই সবকিছু বিচার বিশ্লেষণ করে তিনি কয়েকদিন হোম আইসোলেশনে থাকবেন।