দিল্লির বিস্ফোরণের জন্য বাতিল অমিত শাহ-র বঙ্গ সফর। তাই রবিবার বিজেপির যোগদান মেলা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছিল। অমিত শাহ-এর বদলে সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা কিংবা প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং-কে রাজ্যে উড়িয়ে আনা হতে পারে বলে শোনা যাচ্ছিল। কিন্তু, শেষ পর্যন্ত আসছেন শুধু কেন্দ্রীয় মন্ত্রী স্মৃতি ইরানি। তবে সশরীরে সভায় উপস্থিত না থেকেও, ডুমুরজোলায় বক্তৃতা দেবেন অমিত শাহ, ভার্চুয়াল মাধ্যমে। এর জন্য ডুমুরজোলা স্টেডিয়ামে তড়িঘড়ি বেশ কয়েকটি জায়ান্ট স্ক্রিন বসানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। শনিবার যুদ্ধকালীন তৎপরতায় সেই কাজ চলছে।

এর আগে করোনাভাইরাস লকডাউনের আনলক পর্যায়েও, বিজেপি-র জনসম্পর্ক সভা কর্মসূচি উপলক্ষ্যে দিল্লি থেকে ভার্চুয়াল মাধ্যমে বাংলার মানুষের জন্য ভাষণ দিয়েছিলেন অমিত শাহ। সেইবার রাজ্যের জেলায় জেলায় শিবির করে স্ক্রিন লাগিয়ে অমিত শাহ-র বক্তৃতা শোনার ব্যবস্থা করা হয়েছিল।

তবে অমিত শাহ-র অনুপস্থিতিতে ডুমুরজোলায় বিজেপি-র যোগদান মেলা অনেকটাই রঙ হারিয়েছে। এই সভায় রাজ্যের প্রাক্তন বনমন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়-সহ মোট ২২ জন বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতানেত্রীর বিজেপি-তে যোগ দেওয়ার কথা ছিল। স্মৃতি ইরানি কেন্দ্রীয় মন্ত্রী হলেও তাঁর হাত থেকে বিজেপি-র সদস্যপদ নেওয়াটা রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের পক্ষে অসম্মানজনক হতে পারত। বিশেষ করে রাজ্যের আরেক প্রাক্তন মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী যোগ দিয়েছিলেন অমিত শাহ-এর উপস্থিতিতে এবং ব্যাপক উন্মাদনা তৈকরি হয়এছিল সেই সভা ঘিরে। পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে, রাজীব এবং বৈশালী ডালমিয়া, রথীন চক্রবর্তী, প্রবীর ঘোষাল ও পার্থসারথী চট্টোপাধ্যায়-কে, বিশেষ চার্টার্ড বিমানে দিল্লি উড়িয়ে নিয়ে যাচ্ছেন অমিত শাহ। সেখানে তাঁর উপস্থিতিতে শনিবারই বিজদেপিতে যোগ দেবেন তাঁরা।