ফের ডিগবাজি খেলেন আসানসোলের দাপুটে নেতা জিতেন্দ্র তিওয়ারি। ডিগবাজি খেলেন কেন্দ্রীয় বন ও পরিবেশ মন্ত্রী তথা আসানসোলের বিজেপি সাংসদ বাবুল সুপ্রিয়োও। মঙ্গলবারই, তিনি তৃণমূল কংগ্রেস থেকে বিজেপিতে যোগ দিতে চলেছেন বলে খবর রয়েছে। এর আগে ২০২০ সালের ডিসেম্বর মাসে শুভেন্দু অধিকারী বিজেপিতে যোগ দেওয়ার সময়ই তিনি বিজেপিতে যেতে চেয়েছিলেন। কিন্তু, সেই সময় বাবুল সুপ্রিয় ও বিজেপির আরও কয়েকজন রাজ্যনেতার বাধায় তৃণমূলে ফিরে যেতে বাধ্য হয়েছিলেন। কিন্তু এখন সেইসব বাধা কেটে গিয়েছে।

একসময় জিতেন্দ্র তিওয়ারি ছিলেন আসানসোল পুরসভার মেয়র। সেইসঙ্গে, পশ্চিম বর্ধমান জেলার তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতিও ছিলেন তিনি। কিন্তু, ২০২০ সালের ডিসেম্বরেই তাঁর গলায় শোনা গিয়য়েছিল বেসুরো সুর। শুভেন্দু অধিকারীর সঙ্গে ঘাসফুলের বিদ্রোহীদের সঙ্গে বৈঠকও করছিলেন। রাজ্যের পুর ও নগরোন্নয়ন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমকে একটি চিঠি লিখে, 'কাজ করতে পারছেন না' বলেও জানিয়েছিলেন তিনি। সেইসঙ্গে আসানসোলকে স্মার্ট সিটি করতে দেননি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেও অভিযোগ করেছিলেন।

গেরুয়া শিবিরে যোগ দিতে গিয়ে কিন্তু বাধা পেয়েছিলেন জিতেন্দ্র। প্রথম আপত্তি জানান, আসানসোলের বিজেপি সাংসদ তথা কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়। স্থানীয় বিজেপি কর্মীরাও জিতেন্দ্র তিওয়ারিকে দলে নেওয়ার বিরুদ্ধে ছিলেন। আপত্তি জানিয়েছিলেন বিজেপি নেত্রী লকেট চট্টোপাধ্যায় এবং নেতা সায়ন্তন বসুও। যার জেরে পরে শোকজ করা হয়েছিল সায়ন্তনকে।

একপ্রকার বাধ্য হয়েই তৃণমূলে ফিরে গিয়েছিলেন জিতেন্দ্র। বলেছিলেন দিদির কাছে ক্ষমা চেয়ে নেবেন। কিন্তু, তাতে বিশেষ কাজ হয়নি। দলে পুরোনো ক্ষমতা, প্রতিপত্তি, পুরোনো জায়গা আর ফিরে পাননি এই দাপুটে তৃণমূল নেতা। দলের সঙ্গে তালটা কেটে গিয়েছিল। সেইসময় থেকেই ফের বিজেপি নেতাদের সঙ্গে যোগ রাখতে শুরু করেছিলেন তিনি, এমনটাই বিজেপি সূত্রে খবর।

বাবুল সুপ্রিয়োও জানিয়েছেন, তাঁর সঙ্গেও জিতেন্দ্ররও এরমধ্যে বেশ কয়েকবার কথা হয়েছে। তিনি জানিয়েছেন, একসময় জিতেন্দ্রর মুখোমুখি লড়াই করলেও, নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্বে জিতেন্দ্র নতুন করে বাংলার উন্নয়ন যজ্ঞে সামিল হতে চেয়েছেন। তাই, তাঁর আর আপত্তি নেই। এখন জিতেন্দ্র সঙ্গে একসঙ্গেই কাজ করবেন বলে জানিয়েছেন তিনি।

এদিন শ্রীরামপুরে বিজেপির রাজ্যসভাপতি দিলীপ ঘোষের একটি সভা রয়েছে। সেখানেই জিতেন্দ্র তিওয়ারি উপস্থিত থাকবেন বলেই খবর রয়েছে। সভামঞ্চেই জিতেন্দ্রর হাতে বিজেপির পতাকা তুলে দেওয়ার কথা দিলীপ ঘোষের।