জল্পনা বেশ কয়েক দিন ধরেই চলছিল। দূরত্ব বাড়িয়েছিলেন দলের সঙ্গে। ঘোষণা না করলেও, প্রায় নিশ্চিৎ হয়েই গিয়েছিল তৃণমূল ছাড়তে চলেছেন তিনি। অবশেষে সব জল্পনার অবসান ঘটিয়ে শুভেন্দু অধিকারী, জিতেন্দ্র তিওয়ারিদের দলেই নাম লেখালেন বারাকপুরের বিদ্রোহী তৃণমূল বিধায়ক শীলভদ্র দত্ত। শুক্রবার তৃণমূল কংগ্রেসের সঙ্গে সবরকম সম্পর্ক ছিন্ন করলেন তিনি। চিঠি দিয়ে সরকারিভাবে দল ছাড়াক ঘোষণা করলেন বারাকপুরের বিধায়ক।

দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে দল ছাড়ার চিঠি পাঠিয়ে দিয়েছেন শীলভদ্র দত্ত। তবে কী কারণে দল ছাড়লেন বিধায়ক তা চিঠিতে উল্লেখ করেননি তিনি। ছেড়েছেন সরকারি গাড়ি। যদিও, এখনও তিনি বিধায়ক পদে থাকবেন বলে জানিয়েছেন বিদ্রোহী বিধায়ক। গত কয়েক মাস ধরেই দলের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে ক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন শীলভদ্র। অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় সহ দলের নির্বাচনী স্ট্র্যাটিজিস্ট পিকে-কে নিয়েও অসন্তোষ প্রকাশ করেছিলেন প্রবীণ রাজনীতিবিদ।

দল ছাড়ার সঙ্গে শীলভদ্রের বিজেপিতে যোগদানের জল্পনাও আরও জোরদার হল। মুকুল রায় ঘনিষ্ঠ বলেই পরিচিত শীলভদ্র দত্ত। সূত্রের খবর, বিজেপের সঙ্গে কথাও চূড়ান্ত হয়ে গিয়েছে বারাকপুরের বিধায়কের। রাজ্য সফরে এসে শনিবার মেদিনীপুরে সভা করবেন অমিত শাহ। সেই জনসভায় শুভেন্দু অধিকারীর সঙ্গেই শীলভদ্র দত্তও থাকবেন  বলে জানা যাচ্ছে। ফলে নির্বাচনের আগে একের পর দলের নেতা, বিধায়কদের ইস্তফার কারণে ক্রমেই অস্বস্তি বাড়ছে শাসক দলের।