ব্রিগেড প্যারেড গ্রাউন্ড থেকে কিছুটা চড়া সুরেই বহিরাহত প্রসঙ্গে তৃণমূল কংগ্রেসের তীব্র সমালোচনা করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় একাধিকবার ভারতীয় জনতা পার্টিকে বহিরাগত বলে আক্রামণ করেছেন। রবিবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী তারই উত্তর দিলেন। তিনি বলেন বিজেপিকে বহিরাগত বলার আগে তৃণমূল নেত্রীর উচিৎ নিজেকে সংশোধন করা। কারণ তিনিও একটা সময় কংগ্রেসে ছিলেন। কংগ্রেস থেকে বেরিয়ে তৃণমূল কংগ্রেস তৈরি করেছেন। 

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেন, 'দিদি এমন কথা বলেন যা বাংলার আর্শের পরিপন্থী। দেশকে পথ দেখিয়েছেন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, বিবেকানন্দ, নেতাজি- তাঁরা জীবিত থাকলে তৃণমূলের বহিরাহত তত্ত্ব শুনে তাঁরা আহত হতেন।' কথা প্রসঙ্গে তিনি কংগ্রেসের প্রসঙ্গ উত্থাপন করেন। তিনি বলেন, কংগ্রেসের প্রতিষ্ঠাতা কেও কি বহিরাগত বললেন দিদি? 

তারপরই নরেন্দ্র মোদী বামফ্রন্টের কথা উত্থাপন করেন। তিনি দীর্ঘ দিন ধরেই এই রাজ্যের ক্ষমতায় ছিল বামেরা- যাদের আর্দর্শ মাও সেতুং, কার্ল মার্কস, লেনিন। -এঁরা তো প্রত্যেকেই ভিন দেশের বাসিন্দা। তেমনই তৃণমূল কংগ্রেসও তাই। রাজনৈতিক লাভের কারণেই তারা কংগ্রেস থেকে বেরিয়ে এসে নতুন রাজনৈতিক দল তৈরি করেছে। 

তারপরই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেন বিজেপি একমাত্র দল যারা বাংলার সংস্কৃতিকে ধরে রেখেছে। তাঁরা বাংলার মূল চিন্তাভাবনাকে লালন করছে। ব্রিগেড প্যারেড গ্রাউন্ডে তিনি বলেন বাংলার মহান পুত্র শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায় ভারতীয় জনতা পার্টির ভিত তৈরি করেছিলেন। বিজেপি এমন একটি দল যার অস্তিত্ব বাংলার অস্তিত্বর সঙ্গে যুক্ত রয়েছে। বাংলার সঙ্গে বিজেপি অঙ্গাঙ্গীভাবে যুক্ত বলে তিনি বলেন বিজেপির ডিএনএ-তে রয়েছে বাংলা। আর সেই কারণেই তিনি বহিরাগত প্রসঙ্গে আর কোনও তর্ক করতে রাজি নন। তাঁদের যদি বহিরাগত বলা হয় তাহলে কোনও আপত্তি নেই। কিন্তু তাঁদের বিরোধিতা করে বাংলায় উন্নয়ন থামিয়ে দেওয়ার কাজ মেনে নেওয়া হবে হলেও জানিয়েছেন তিনি। মোদী বলেন তাঁরা বাংলায় এলে উন্নয়নের একটি যুগের সূচনা হবে। জনসভা থেকেই প্রধানমন্ত্রী প্রতিশ্রুতি দেন যে বিজেপি ক্ষমতা আসলে এই রাজ্যে আসল পরিবর্তন হবে। একই সঙ্গে জনগণকে নির্ভয়ে ভোট দেওয়ারও আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।