শুক্রবার একই দিনে বাংলায় ভিন্ন দলের পৃথক সভা। একদিকে ধর্মতলায় কংগ্রেসের সভায় ছিল অধীর চৌধুরী। অপরদিকে তৃণমূলের সভার পাশাপাশি নন্দীগ্রামে শুভেন্দুর সভা। ইতিমধ্য়েই উপস্থিত হয়েছেন মুকুল রায়, দিলীপ ঘোষ, কৈলাশ বিজয় বর্গীয় এবং শুভেন্দু অধিকারী।

 

 

নন্দীগ্রামের সভায় উপস্থিত হয়ে মুকুল রায় বলেন, ' আমি যখন বিজেপিতে যোগ দিয়েছি, তারপর অনেকটা সময় পেরিয়েছে। আমরা বলতাম, জায়গা ছেড়ে দাও, নতুনদের সুযোগ দাও। তাই আমাদের দায়িত্বটাও বেড়ে যাবে। আমি বাংলায় শেষ পরিবর্তন দেখে যেতে চাই।' পাশাপাশি তিনি আরও বলেন,'টাটাকে বাংলা থেকে তাড়ানোটা ভুল হয়েছে। আমি এখন অনুতপ্ত। সেই কারণে বাংলায় কোনও বড় শিল্প আসেনি। বেকারদের কর্মসংস্থান নেই।'

 

যদিও নন্দীগ্রামের সভা শুরুর আগেই অপরদিকে কলকাতায় তৃণমূলভবনে সাংবাদিক সম্মেলনে পার্থ চট্টোপাধ্যায় অবশ্য উলটপূরাণের খাতা খুলেছেন। তিনি বলেন, কেউ বলছেন না যে বাংলায় বেকারত্বের হার কমছে। চাকরী সুযোগ বাড়ছে। জাতীয় স্তরেও যেখানে ৪৫ বছরের ওপরেও বেকারত্বের হার চূড়ায়। সেখানে আমরা এখানে আমাদের সাধ্য মতো কর্ম সংস্থানের সুযোগ করে দিয়েছি।'