'বৈশাখীর গ্ল্যাক্সো বেবি' তকমার পাল্টা জবাব দিলেন শোভন। নাম না করে কুণাল ঘোষকে পকেটমার  বলে আক্রমণ করলেন কলকাতার প্রাক্তন মেয়র   শোভন চট্টোপাধ্যায়। এখানেই শেষ নয় সুদীপ্ত সেনের মোটা অঙ্কের  বেতন পাওয়া কুণাল ঘোষ দালালের কাজ করতেন বলে খোঁচা দেন শোভন।


চিট ফান্ড কাণ্ডে কুণালের গ্রেফতারের জন্য দাবি তুলেছেন শোভন চট্টোপাধ্যায়। তিনি বললেন, 'চিট ফান্ড কাণ্ড এই লোকটির কি ভূমিকা ছিল। সে প্রকৃতপক্ষে কোনও রাজনীতিক সঙ্গে যুক্ত ছিলেন না। মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায় তখন চিন্তা ভাবনা করে ৩ জনকে সাংসদ করেছিলেন। সেই তিন জনের মধ্য়ে এই মানুষটিও জড়িয়ে রয়েছেন। এখানেই শেষ নয় এরপর ইনকাম ট্য়াক্স ফাঁকি এবং অবৈধ টাকা আয়ের প্রসঙ্গ তুলে তিনি বলেন,' পকেটমারকে ধরে নিয়ে এসে যারা মুখপাত্র করেছে, তারা দেখবেন পায়ের তলা থেকে মাটিটা কোন দিন সরে গিয়েছে। নাম না করে একের পর এক তোপ দাগলেন কুণাল ঘোষকে শোভন চট্টোপাধ্যায়। তিনি আরও বলেন,' ৩৬ বছর জন প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করেছি। আমাকেও মানুষ জানে,  কুণাল ঘোষকেও জানে। তাই মানুষই এর বিচার করে নেবে।' কুণাল সাংবাদিক হিসেবে যে অঙ্কের বেতন পেতেন তার জন্য যোগ্য ছিল 'দালালি' বলেও তীব্র আক্রমণ করেন শোভন।

 
প্রসঙ্গত, বিজেপির মঞ্চ কুণাল প্রসঙ্গ তুলে মমতা না নাম না করে শোভন বলেন, ওর পায়ের তলার মাটি সরে গিয়েছে।  রাজীব কুমারকে বাঁচাতে ধর্ণায় বসেছিলেন তিনি।
আবার সেই রাজীব কুমারের বিরুদ্ধেই শিলংয়ে গিয়ে সাক্ষী  দিয়ে আসা কুণাল ঘোষকে দলে মুখপাত্র হিসেবে নিয়োগ করেন। আর এরপরেই খোঁচা দিয়ে শোভনকে কুণাল বলেন, 'বৈশাখীর গ্ল্যাক্সো বেবি, ওর কথার আর কী জবাব দেব'।' তবে শুধু এটাই নয়, চিটফান্ড কাণ্ডে মুকুল রায়, শোভন চট্টোপাধ্যায়ের গ্রেফতারের দাবি জানায় কুণাল। এদিকে মিথ্য়ে অপবাদ দিয়ে জড়ানোর চেষ্টা করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন শোভন। কুণালের গ্রেফতারের জন্য পাল্টা দাবি তুলেছেন  কলকাতার প্রাক্তন মেয়র ।