নতুন বছরের প্রথম দিন থেকেই নিজের রাজনৈতিক কর্মসূচিতে জোর দিয়েছেন শুভেন্দু অধিকারী। ভাই সৌমেন্দু অধিকারীর বিজেপিতে যোগদানের বিষয়টিও নিশ্চিৎ করেছেন বিজেপি নেতা। শাসক দলের পাশাপাশি 'তোলাবাজ ভাইপো'-কেও  আক্রমণ অব্যাহত রেখেছেন শুভেন্দু। শুক্রবার নন্দীগ্রামের সোনাচুঁড়ার সভা থেকে নাম না করে ফের অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে তোপ দাগেন শুভেন্দু অধিকারী। মুখ খোলেন রাজ্য জুড়ে চলা কয়লা ও গরু পাচার চক্রের তদন্তে নামা সিবিআইয়ের অভিযান নিয়েও। 

রাজ্য জুড়ে কয়লা পাচার ও গরু পাচার কাণ্ডের তদন্তে নেমে তল্লাশি অভিযান চালাচ্ছে সিবিআই। লালা, এনামুলের পর ইতিমধ্যেই ঘটনায় নাম উঠে এসেছে যুব তৃণমূল কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক ব্যবসায়ী বিনয় মিশ্রের নাম। ইতিমধ্যেই বিনয় মিশ্রের কলকাতার দুটি বাড়ি ও কৈখালির বাড়িতে তল্লাশি চালিয়েছে সিবিআই। কৈখালির ফ্ল্যাট সিলও করে দিয়েছে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা। পাশাপাশি নিরুদ্দেশ বিনয় মিশ্রের বিরুদ্ধে জারি হয়েছে লুক আউট নোটিস। সোনাচুঁড়ার সভা থেকে শুভেন্দু অধিকারী বলেন, লালা, এনামুল, বিনয় মিশ্রের পর আর একটা চৌকাঠ। তারপরই পালা তোলাবাজ ভাইপোর। অর্থাৎ নাম না করে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্য়ায়কে হুঁশিয়ারী দিয়ে রাখলেন শুভেন্দু অধিকারী। পাল্টা দিয়েছেন, তৃণমূল সাংসদ সৌগত রায়ও। শুভেন্দু সিবিআইয়ের মুখপাত্র কিনা তা নিয়ে প্রশ্ন ছুঁড়ে দিয়েছেন প্রবীণ তৃণমূল নেতা। একইসঙ্গে তিনি বলেছেন,'সিবিআইয়ের কাছে কোনও প্রমাণ থাকলে সামনে আনুক। সিবিআই কেন্দ্রের নির্দেশে প্রতিশোধমূলক কাজ করছে।'

শুধু শুভেন্দু  অধিকারী নয়, সিবিআই তল্লাশি অভিযান নিয়ে মুখ খুলেছেন  বিজপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ ও সাংসদ বাবুল সুপ্রিয়।  গরুপাচারকাণ্ডে যুব তৃণমূল নেতা বিনয় মিশ্রর বাড়িতে সিবিআই তল্লাশি প্রসঙ্গে ফের তৃণমূলকে নিশানা করে দিলীপ ঘোষ বলেন, 'বিনয় মিশ্র খুব পপুলার লোক। আর কেন পপুলার সেটা সবাই জানেন। সেই জন্যই সিবিআই তাঁর বাড়িতে তল্লাশি করছে। যারা কিংপিন এবং যারা অপারেট করে, তাদের নাম সবাই জানে। সিবিআই তদন্তে সত্য সামনে আসবে।' বাবুল সুপ্রিয় বলেন, এটা তো হওয়ারই ছিল। উনি অভিষেকের রাইট হ্যান্ড। এই যে কয়লা, বালি, লোহা সব কিছুর টাকা অভিষেকের কাছে উনি পৌঁছে দিতেন। এমনকী ওসি সহ ছোটোখাটো পুলিশ আধিকারিকদের বদলি ওনার হাত দিয়েই হত। কান টানলেই মাথা আসে।'