ভোটের মুখে শেষে কি উলটপূরাণ। সোমবার বিধানসভায় মমতার সঙ্গে বিজেপির দুই বিধায়ক সাক্ষাত করতেই জল্পনার জল গড়াল অনেকদূর। একসময় তৃণমূল থেকে বিজেপিতে যাওয়া সুনীল সিং এবং বিশ্বজিত দাসের ফের ঘরের ফেরার কথা অঘোষিত হলেও এইমুহূর্তে ঘোরাফেরা করছে রাজ্য-রাজনীতিতে। তাই প্রশ্ন উঠেছে বিজেপির এই বিধায়কদ্বয় তাহলে কি আবার তৃণমূলে ফিরতে চলেছেন।

আরও পড়ুন, 'আমি চাই ভাগচাষিরাও টাকা পাক,কিষাণ নিধিতে যুক্ত হোক', মোদীর তোপের পর পাল্টা দাবি মমতার  

 

 

সূত্রের খবর, সোমবার বিধানসভায় মুখ্যমন্ত্রীর ঘরে ঢোকার পর তাঁকে পায়ে হাত দিয়ে প্রণাম করেন বঁনগার বিধায়ক বিশ্বজিৎ দাস। প্রায় ২২ মিনিট মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেন তাঁরা।  এরপরেই খাদ্যমন্ত্রী জ্য়োতিপ্রিয় মল্লিক ও পার্থ ভৌমিককে নিজের ঘরে ডেকে নিতে দেখা যায় মুখ্যমন্ত্রীকে। এদিকে মুখ্যমন্ত্রীর ঘরে ঢোকেন পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম। এরপরেই জল্পনা শুরু হয় বিজেপির দুই বিধায়কের তৃণমূলে ফেরা নিয়ে।

 

আরও পড়ুন, 'কৃষকদের প্রকল্প নিয়েও রাজনীতি বাংলায়', কৃষি আইনের পক্ষে সওয়াল মোদীর  

 

 

যদিও মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাতের পর দলবদলের কথা এড়িয়ে যান সুনীল সিং এবং বিশ্বজিত দাস। তাঁদের দাবি, বিধানসভা এলাকায় কাজ বাকি রয়েছে। সেই উন্নয়নমূলক কাজ নিয়ে কথা বলতেই মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেছিলেন তাঁরা। বিশ্বজিৎ দাশ জানিয়েছেন, ৯৬ লক্ষ টাকা পড়ে রয়েছে। আমি সম্প্রতি আরও ১ কোটি ৮০ লাখ টাকা দিয়েছি। টাকা গুলো কাজ করছে না, এটা বলতেই দিদির কাছে এসেছিলাম। তবে দুই বিধায়ক মুখে যাই বলুক, মুখ্যমন্ত্রীর ঘর থেকে বেরিয়ে ভিক্ট্রি সাইন দেখানোয় ভোটের আগে পারদ চড়ল অনেকটাই তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। 'ভয়ঙ্কর খেলা হবে', শেষে  অনুব্রতের কথা সত্যি হবে কি না, গুঞ্জন রাজনৈতিক মহলে।