'প্রধানমন্ত্রী কিষাণ নিধি প্রকল্পের ক্ষেতমজুর ও ভাগচাষীদের যুক্ত করতে' দাবি জানালেন মুখ্য়মন্ত্রী মমতা বন্দ্য়োপাধ্য়ায়। মোদীর তোপের পর সোমবার বিধানসভায় বাজেট আলোচনার এমনই পাল্টা  জবাব দিলেন মমতা।

আরও পড়ুন, 'কৃষকদের প্রকল্প নিয়েও রাজনীতি বাংলায়', কৃষি আইনের পক্ষে সওয়ার মোদীর 

 

 

এদিন বিধানসভায় মমতা মোদীর উদ্দেশ্য়ে তোপ দেগে বলেন, মোদী মিথ্য়ে কথা বলছেন, মিথ্যে কথা বলা অভ্যাস হয়ে গিয়েছে। আমি চাই ভাগচাষিরাও টাকা পাক। কিন্তু ওদের প্রকল্পে তো ২ একর জমি যাদের রয়েছে। সেই কৃষকরা টাকা পাবে। আমরা বলেছিলাম আপনাদের কাছে যে তথ্য আছে, সেটা দিন। কিন্তু সেই তথ্য দেয়নি। ওরা স্টেট পোর্টালে কৃষকদের হিসেব দেয়নি। নিজেদের পোর্টালে আলাদা করে হিসেব নিয়েছেন। আমরা বলেছিলাম, আমরা একবার সার্ভে করে দেখি।' মুখ্যমন্ত্রী এদিন আরও জানান, কেন্দ্র ৬ লক্ষ কৃষকের নামের তালিকা দিয়েছে। আমরা আড়াই লক্ষ সার্ভে করে দেখি। আমরা বলেছি প্রতিদিন এক লক্ষ করে সার্ভে দেব। আমি একথা জানিয়ে বার বার চিঠি দিয়েছি।

আরও পড়ুন, 'জোড়াবাগান খুন বিরলতম', অভিযুক্ত দাগী আসামী কিনা জানতে গিরিডি পুলিশে খোঁজ চালাবে লালবাজার 

 

 

 

 

এদিন বিধান সভায় প্রধানমন্ত্রীকে দেওয়া চিঠিও তুলে দেখান মুখ্যমন্ত্রী। প্রসঙ্গত, রবিবারই হলদিয়ার রাজনৈতিক সভা থেকে প্রধানমন্ত্রী মোদী জানিয়েছেন,' কিছুদিন আগেই কৃষকদের নাম পাঠিয়েছে রাজ্য সরকার। বাংলায় প্রায় ২৫ লক্ষ কৃষক তৃণমূল সরকারের কাছে আবেদন জানিয়েছেন। রাজ্যের কৃষক, গরীবদের জন্য ৪ কোটি জনধন অ্যাকাউন্ট খুলেছিল কেন্দ্র। সরাসরি ব্যাঙ্ক অ্য়াকাউন্টে টাকা দিয়ে  অ্য়াকাউন্ট খুলতে সাহায্য করেছিল কেন্দ্র। এই প্রকল্পের সুবিধা কিন্তু পশ্চিমবঙ্গের মানুষ পায়নি। রাজ্য সরকার কৃষকদের এই টাকা থেকে বঞ্চিত করেছে। কৃষকদের ব্যাঙ্কের তথ্য পর্যন্ত দেয়নি রাজ্য সরকার। মা-মাটি-মানুষের সরকারের জন্য টাকা পায়নি কৃষকরা। কিন্তু ২৫ লক্ষের মধ্য়ে মাত্র ৬ হাজার কৃষকের নাম পাঠিয়েছে রাজ্য। কেন্দ্র এখনও ৬ হাজার কৃষককে টাকা পাঠাতে পারছে না।' এরপরই 'মোদী মিথ্যে বলছে' বলে দাবি করেন মমতা। যদিও  হলদিয়ার টাটকা তোপের পর সোমবার ফের মমতার সরকারের বিরুদ্ধে তোপ দেগেছেন রাজ্যসভায়। এরপর ফের কী পাল্টা জবাব আসে ঘাসফুল শিবির থেকে, তার অপেক্ষায় রাজনৈতিক মহল।