বাংলায় ভোট প্রচারে আবারও চড়া সুরেই রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসকে নিশানা করলেন বিজেপির স্টার ক্যাম্পেনার যোগী আদিত্যনাথ।পুরুলিয়া ও পশ্চিম মেদিনীপুরের জনসভা থেকে তিনি রীতিমত হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন ২ মে পশ্চিমবঙ্গে বিজেপি সরকার গঠন করবে। সেই সময় যাঁরা বিগত দিনগুলিকে বিজেপি কর্মীদের ওপর আক্রমণ চালিয়ে ছিল তাদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। তিনি বলেন তৃণমূল কংগ্রেসের বিদায় নেওয়ার আর মাত্র ৪৫ দিন বাকি রয়েছে। এদিন রাজ্যে তিনি পুরুলিয়া ও পশ্চিম মেদিনীপুরে জনসভা করেন। এই রাজ্যে প্রায় ১২টি নির্বাচনী জনসভা করার কথা রয়েছে তাঁর।

পুরুলিয়ার জনসভা থেকে যোদী আদিত্যনাথ চড়া সুরে আক্রমণ করেন রাজ্যের তৃণমূল সুপ্রিমো তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। তিনি বলেন ২০১৪ সালের পর থেকে এই দেশে একটা পরিবর্তন লক্ষ্য করা যাচ্ছে। আগে মন্দিরে গেলে তাঁদের ধর্মনিরপেক্ষতা ঝুঁকির মধ্য়ে পড়ে যেত। এখন তিনি লক্ষ্য করছেন বলে জানিয়েছেন নন্দীগ্রামে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় চণ্ডীপাঠ করছেন। 

নন্দীগ্রাম কেন্দ্রের নির্বাচনী প্রচারে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছিলেন তিনি নিত্যদিন সকালে চণ্ডীপাঠ করেন। এই কেন্দ্রে মমতার প্রতিপক্ষ তাঁরই এককালের অনুগামী শুভেন্দু অধিকারী। আর বিজেপি প্রথম থেকেই সরব মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে সংখ্যালঘু তোষণের অভিযোগ তুলে সরব হয়েছে। এদিন যোদী আদিত্যনাথ বলেন এখন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, রাহুল গান্ধীও মন্দিরে যাচ্ছেন। এদিনও যোগী আদিত্যনাথ জয় শ্রীরাম স্লোগান প্রসঙ্গ তুলে খোঁচা দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। তিনি বলেন এই স্লোগান পছন্দ নয় দিদির। কিন্তু তিনি যখন বাংলায় আসেন তখন সকলেই তাঁকে জয়শ্রীরাম বলে স্বাগত জানায়। 

পশ্চিম মেন্দিনীপুরের জনসভা থেকেই যোগী আদিত্যনাথ তাঁর আক্রমণের ধারা অব্যাহত রাখেন। নাম না করে মোদীর ডবল ইন্জিনের প্রসঙ্গ উত্থাপন করেন নিজের মত করে। তিনি বলেন কেন্দ্র ও রাজ্যের আদর্শ ও লক্ষ্য যদি এক হয় তাহলে রাজ্যের উন্নয়ন হওয়াটাই স্বাভাবিক। যেমনটা হচ্ছে উত্তর প্রদেশে। এই রাজ্যে যদি বিজেপি ক্ষমতায় আসে তাহলে এই রাজ্যের উন্নয়নও গতি পারে বলেও মন্তব্য করেন যোগীজি। তিনি আরও বলেন, বিজেপি ক্ষমতায় এলে মহিলাদের উন্নয়ন তরান্বিত হবে বলেও দাবি করেন যোগী আদিত্যনাথ। তিনি আরও বলেন বিজেপির মূল মন্ত্রই হল সকলের সঙ্গে আর সকলের উন্নয়নের জন্য কাজ করে যাওয়া।