জায়গায় জায়গায় মানুষকে ভোট দিতে বাধা দিচ্ছে, ভয় দেখাচ্ছে বিজেপি। এমনকী কেন্দ্রীয় বাহিনীও অনেক জায়গায় তাদের হয়েই কাজ করছে। অভিনব উপায়ে তৃণমূলের ভোটারদের চিহ্নিত করে দেখানো হচ্ছে ভয়। প্রথম দফার নির্বাচন চলাকালীন, এমনই সব অভিযোগ করছে তৃণমূল কংগ্রেস।  

পূর্ব মেদিনীপুরের ভগবানপুর বিধানসভা কেন্দ্রের অর্জুননগরে এক অভিনব উপায়ে তৃমমল কংগ্রেসের ভোটারদের চিহ্নিত করছে বিজেপি। এমনই অভিযোগ করেছে স্থানীয় তৃনমূল কংগ্রেস নেতৃত্ব। তাদের দাবি, বিজেপির পক্ষ থেকে ইভিএম মেশিনে তৃণমূলের বোতামের উপর একটি বিশেষ রং লাগিয়ে দিয়েছে বিজেপি। তৃমমূলকে যারা ভোট দিচ্ছে, তাদের হাতে লেগে যাচ্ছে সেই রং। বুথের বাইরে দাঁড়িয়ে তাদের উপর নজর রাখছে বিজেপির কার্যকর্তারা। হুমকি দেওয়া হচ্ছে, যারা তৃণমূলকে ভোট দিচ্ছেন তাদের দেখে নেওয়া হবে।

এরর পাশাপাশি বেশ কয়েকটি এলাকায় কেন্দ্রীয় বাহিনীর পক্ষ থেকেও ভোট প্রক্রিয়াকে প্রভাবিত করার অভিযোগ তুলেছে তৃণমূল। বাঁকুড়ার শালতোড়া বিধানসভা কেন্দ্রের সালমা এলাকার ২২ ও ২২ক বুথে কেন্দ্রীয় বাহিনীর পক্ষ থেকে তৃণমূলের ভোটারদের বেছে বেছে ভোট দিতে বাধা দেওয়া হচ্ছে, বলে অভিযোগ করেছে তারা।

পূর্ব মেদিনীপুরের ভগবানপুরেরই ১৪৯ নং বুথে আবার বিজেপির কার্যকর্তারাই তৃণমূলের ভোটারদের ভয় দেখাচ্ছে বলে অভিযোগ। আবার বাঁকুড়ার বিভিন্ন এলাকায় কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ানরা বিজেপপির হয়ে কাজ করছে বলে অভিযোগ শাসক দলের। সাধারণ মানুষ তার প্রতিবাদ করলে তাদের মারধরও করা হয়েছে বলে দাবি করেছেন স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্ব।

এর আগে বিজেপির বিরুদ্ধে দুই মেদিনীপুরের অসংখ্য এলাকায় বিজেপির বিরুদ্ধে বুথ দখলের অভিযোগ করেছিল তৃণমূল। কাঁথি দক্ষিণ এবংকাঁথি উত্তর আসনের দুটি বুথে ভোট পড়ার শতাংশ হিসাবেও গড়বড় রয়েছে বলে জানিয়েছিল তারা।  

তবে সব অভিযোগ উড়িয়ে, বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেছেন, হেরে যাওয়ার ভয় থেকেই এইসব অভিযোগ তুলেছে তৃণমূল।