বছর শেষ হতেই ভোটের রণদামামা। একুশের ভোটের প্রস্তুতি শুরু করে দিল নির্বাচন কমিশন।  রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচনের আগে পুরোদমে ময়দানে নেমেছে নির্বাচন কমিশন। দেশের নির্বাচন কমিশন এই ২০২১ এর নির্বাচনকে শান্তিপূর্ণভাবে করাতে চায়। ইতিমধ্যেই দ্বিপাক্ষিক বৈঠক সেরে নিতে ডেপুটি নির্বাচন কমিশনার সুদীপ জৈন ও তার ফুল টিম ইতিমধ্যেই শহরে পা রেখেছে। এবং আগামী ২ দিনের মধ্যেই রাজ্যের বিভিন্ন সরকারি অফিসার, আইপিএস অফিসারদের সঙ্গে বৈঠক সারতে চলেছেন তিনি।

আরও পড়ুন-'অবৈধ পাচারকারীরা' BJPতে এলে মানবেন না, জিতেন্দ্র প্রসঙ্গে বিস্ফোরক বাবুল...

২০২১ সালের বিধানসভা নির্বাচন  নিরপেক্ষভাবে পরিচালিত করতে বদ্ধপরিকর নির্বাচন কমিশন। আইনশৃঙ্খলা  বজায় রাখতে সমস্ত বুথ কেই সংবেদনশীল বলে ঘোষণা করতে প্রস্তুত নির্বাচন কমিশন। কী সিদ্ধান্ত নিতে চলেছে নির্বাচন কমিশন। গত বৃহস্পতিবার জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ও পুলিশ সুপারের সঙ্গে বৈঠকে তেমনটাই জানিয়েছেন ডেপুটি নির্বাচন কমিশনার সুদীপ জৈন।

 

 

ইসি-র সিনিয়র কর্মকতা জানিয়েছেন, 'কমিশন সমস্ত ডিএম ও এসপিদের প্রতিদিনের রিপোর্ট ইসিতে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছে। যাতে নির্বাচনের নোটিফিকেশন জারি হওয়ার পরে তাদের কেউই  বাইরে থাকতে না পারে। ইতিমধ্যেই কমিশন আইনশৃঙ্খলার পরিস্থিতিও পর্যবেক্ষণ করছে এবং ভোটাররা যাতে তাদের ভোটাধিকার  সঠিকভাবে প্রয়োগ করতে পারে তার জন্য সম্ভাব্য সব পদক্ষেপ গ্রহণ করবে কমিশন।'

রাজ্য নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গিয়েছে, বিভিন্ন জেলার পুলিশ রিপোর্ট ও নির্বাচনী আধিকারিকদের রিপোর্টও পর্যালোচনা করবেন সুদীপ জৈন। আজ শুক্রবার প্রেসিডেন্সি রেঞ্জ, বর্ধমান ও মেদিনীপুরের জেলাশাসক ও পুলিশ কর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করবেন সুদীপ জৈনের। এছাড়াও স্বাস্থ্য সচিব ও স্বরাষ্ট্রসচিবের সঙ্গে বৈঠক করবেন বলে সূত্রের খবর।গতবারের  নির্বাচনে যেসব বুথে অশান্তি হয়েছিল তার খোঁজখবর নেবেন উপ মুখ্য নির্বাচন কমিশনার। রাজ্যে ভোটার তালিকা সংশোধনের কাজও শুরু হয়ে গেছে। করোনা সাবধানতা বজায় রেখে বুথের সংখ্যা বাড়ানো যায় কিনা সে বিষয়েও আলোচনা হবে বলে খবর।