আরও জোরালো হল দল বদলের জল্পনা। শুভেন্দুর পথ অনসরণ করে একে একে প্রশাসনের সব দায়িত্ব থেকে ইস্তফা দিলেন ভাই দিব্যেন্দু অধিকারী। হলদিয়ায় সরকারি অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকার কথা প্রধানমন্ত্রীর। সেখানে আমন্ত্রিত রয়েছেন গোটা অধিকারী পরিবার। পাশাপাশি, লোকসভালর স্পিকার ওম বিড়লার সঙ্গেও তিনি সাক্ষাৎ করতে পারেন। এই অবস্থায় প্রশাসনিক স্তরে সব থেকে বিদায় নিলেন দিব্যেন্দু।

আরও পড়ুন-B-Team হতে চায় না BJP, আপাতত দল বদলে রাশ টানল গেরুয়া শিবির

পূর্ব মেদিনীপুরের ৮টি হাসপাতালের রোগী কল্যাণ সমিতির চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্বে ছিলেন। মঙ্গলবার সেই সব দায়িত্ব থেকে ইস্তফা দিয়েছেন দিব্যেন্দু। একসঙ্গে স্বাস্থ্য দফতরের মনোনিত সরকারি প্রতিনিধি ছিলেন। সেই পদ থেকেও ইস্তফা দিলেন তিনি। তবে এখনও তিনি হলদিয়া উন্নয়ন পর্ষদের দায়িত্বে রয়েছেন বলে সূত্রের খবর। লোকসভার স্পিকার ওম বিড়লার সঙ্গে সাক্ষাৎ করে তিনি সাংসদ পদ থেকেও ইস্তফা দিতে পারেন বলেও জল্পনা শুরু হয়েছে। এই অবস্থায় প্রশাসনের সব পদ থেকে দিব্যেন্দুর ইস্তফা দলবদলের ইঙ্গিত জোরালো হয়েছে।

আরও পড়ুন-'এবার জায়গা ছেড়ে দেওয়ার পালা' এই মন্তব্য করে কী বোঝাতে চাইলেন মুকুল রায়

শুভেন্দুর যোগদানের কয়েক দিনের মধ্যেই তাঁর ভাই সৌমেন্দুকে রাতারাতি অপসারণ করা হয়। কাঁথি পুরসভার প্রশাসকের পদে ছিলেন তিনি। তার দিন কয়েক পরেই তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগদান করেছিলেন সৌমেন্দু। সেই সময় দলের বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায়কে চিঠিও লিখেছিলেন দিব্যেন্দু। সম্প্রতি, পূর্ব মেদিনীপুর জেলা কমিটির সভাপতির পদ থেকে অপসারিত হন শিশির অধিকারী। এই অবস্থায় দিব্যেন্দুর সিদ্ধান্ত ঘিরে রাজ্য রাজনীতিতে নতুন করে জল্পনা।