ভোটের আগে বর্ধমানে বোমা বিস্ফোরণে শিশু মৃত্যুর     ঘটনায় নড়েচড়ে বসল নির্বাচন কমিশন। ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে রিপোর্ট তলব করা হল কমিশনের পক্ষ থেকে। একইসঙ্গে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতেও তৎপর কমিশন। ভোটের ঠিক আগে খাগড়াগড়ের স্মৃতিকে উস্কে দিয়ে সোমবার ফের বোমা বিস্ফোরণ ঘঠে  বর্ধমান শহরের রসিকপুরে। দুই শিশু বল ভেবে খেলতে গিয়েই ঘটে বিস্ফোরণ। ঘটনায় এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। আশঙ্কাজনক অবস্থায় এখনও হাসপাতালে ভর্তি আরেকজন।

বর্ধমানে বিস্ফোরণের ঘটনায় শুরু হয়ে গিয়েছে রাজনৈতিক তরজা। বিরোধীদের অভিযোগ, শাসক দলের 'খেলা হবে' স্লোগানের পরিণামই হল এই বিস্ফোরণ। রাজ্যের আইন-শৃঙ্খলা বলে কিছু নেই বলেও তোপ দেগেছে বিজেপি নেতৃত্ব। সুর চড়িয়েছে বাম-কংগ্রেসও। যদিও শুধু মাত্র অহেতুক রাজনীতি করার জন্যই এমন অভিযোগ করছে বিরোধীরা, মত তৃণমূলের। ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন খোদ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ফলে ভোটের আগে বর্ধমানের বিস্ফোরণের ঘটনা রাজ্য-রাজনীতিপ পারদ আরও চড়িয়েছে।

সোমবার বর্ধমানের ঘটনার পরও তৎপরতা বাড়িয়েছে নির্বাচন কমিশন। এবার প্রথম থেকেই শান্তি ও সুষ্ঠু ভোট করতে চাইছে কমিনের আধিকারিকরা। অফিসার, পুর প্রশাসক বদল থেকে একাধিক পদক্ষেপও নেওয়া হয়েছে। রাজ্যে এসেছে কেন্দ্রীয় বাহিনীও। কিন্তু তারপরই এই ঘটনা উদ্বেগ বাড়িয়েছে কমিশনের। ঘটনায় ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে রিপোর্ট তলব করেছে নির্বাচন কমিশন। এই ঘটবনার পর নির্বাচন নির্বিঘ্নে করতে আরও কঠোর হয় কিনা কমিশন সেটাউ দেখার।