ভোটের আগে দিনহাটা -শালবনীর পর এবার  উচ্চ মাধ্যমিকের পড়ুয়াকে নিশানা।  উচ্চ মাধ্যমিকের পড়ুয়াকে জোর করে নির্বাচনী প্রচারে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা-রাজি না হওয়ায় কুপিয়ে খুনের চেষ্টার অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে।  ঘটনাটি ঘটেছে তীব্র চাঞ্চল্য মালদহের গাজল থানা এলাকার পশ্চিম কসবা এলাকায়।

আরও পড়ুন, রাজ্যে প্রথমদফা ভোটের আগে শালবনিতে উদ্ধার BJP নেতার ঝুলন্ত দেহ, কাঠগড়ায় তৃণমূল  

 

 

জানা গিয়েছে, উচ্চ মাধ্যমিকের ছাত্র জয়রাম সরকারকে জোর তৃণমূলের হয়ে প্রচারে যাওয়ার জন্য চাপ সৃষ্টি করা হয়েছে বলে অভিযোগ।  ছাত্রের কাকা সুকুমার সরকার স্থানীয় তৃণমূল নেতা। তিনিই জানিয়েছেন, দলের হয়ে প্রচারে না যাওয়ায় তাঁর ভাইপোকে হাতুড়ি দিয়ে আঘাত করা হয়। এরপর ছুরি দিয়ে কুপিয়ে খুনের চেষ্টা করা হয় বলেও অভিযোগ। গুরুতর আহত ওই স্কুল পড়ুয়া মালদহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। অভিযুক্ত তৃণমূল নেতা বলরাম সরকারের বিরুদ্ধে থানা অভিযোগ দায়ের করেছে ওই ছাত্রের পরিবার। 

 আরও পড়ুন, 'ঠিক পথে এগোচ্ছি বলেই বাধা', নিজের প্রচার আধিকারিক আক্রান্ত হতেই TMCকে ধীক্কার পায়েলের 

 

 


এদিকে, রাত পেরোলেই রাজ্য়ে প্রথম দফার ভোট।   ২৭ মার্চ শনিবার প্রথম দফায় ৫ টি জেলার ৩০ টি আসনে ভোট গ্রহন হতে চলেছে। আর তার আগেই দিনহাটা -শালবনীতে বিজেপি নেতা খুনের অভিযোগের পর এবার পার পেল না উচ্চ মাধ্যমিকের পড়ুয়াও।  উল্লেখ্য, অমিত শাহ জানিয়েছেন, ' আমার পার্টির ১৩০ জনের বেশি কার্যকর্তাকে হত্যা করা হয়েছে। নির্বাচনের একেবারে দোরগড়ায় ৩ জনকে হত্যা করা হয়েছে। আমি বাংলার জনতার কাছে আবেদন জানাতে চাই-বাংলার রাজনৈতিক হিংসা বিজেপি ছাড়া কেউ বন্ধ করতে পারবে না।'