রাজ্যে প্রথমদফা ভোটের আগে শালবনিতে উদ্ধার বিজেপি নেতার ঝুলন্ত দেহ। জানা গিয়েছে মৃত ওই বিজেপি নেতার  নাম লালমোহন সোরেন। এদিকে রাত পেরোলেই রাজ্য়ে প্রথম দফার ভোট। আর তাই এই ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে এলাকায়। স্থানীয় বিজেপি নেতার অভিযোগ, 'তৃণমূলই খুন করে ঝুলিয়ে দিয়েছে ওই কর্মীকে।' স্থানীয় এক বিজেপি কর্মী জানিয়েছেন, বেশ কয়েকদিন ধরে ওই এলাকায় সন্ত্রাস ছড়াচ্ছে তৃণমূল। একাধিক জায়গায় বিজেপির দেওয়াল লিখন মুছে দেওয়া,  পোস্টার ফেস্টুন ছেঁড়া, কার্যালয়ে ভাঙচুর চালানোর মতো ঘটনা ঘটেছে। পুলিশ সূত্রে খবর, মৃত ওই কর্মীকে আগে কোনও রকম হুমকি দেওয়া হয়েছিল কিনা, সেবিষয়ে পরিবারকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। 

 

আৎও পড়ুন, রাজ্যে প্রথম দফা ভোটের আগে ছাত্রধরকে তলব NIA-র, তদন্তে সাহায্য না করলেই গ্রেফতারের সম্ভাবনা 

 


 


সূত্রের খবর, মৃত যুবকের নাম লালমোহন সরেন ৷ বয়স ২২বছর ৷ পরিবারের লোকেরা জানিয়েছেন- বৃহস্পতিবার বিকাল থেকেই লোলমোহন বাড়ি থেকে বেরিয়েছিল ৷ তারপরে রাতে কোনো খোঁজ মেলেনি ৷ পরিদন সকালে বাড়ি থেকে কিছুটা দুরে তাঁর দেহ উদ্ধার হয়েছে ৷ শরীরে কোনো আঘাতের চিহ্ন নেই বলেই পুলিশ প্রাথমিক ভাবে জানিয়েছেন ৷ তার সঙ্গে পরিবারের লোকেরাও ময়নাতদন্তের জন্য প্রয়োজনীয় আবেদন করেছে পুলিশের কাছে ৷  পরিবারের পক্ষ থেকে মৃতের কাকা জিতেন হেমব্রম শালবনী থানাতে ঘটনার জন্য পুলিশকে ময়নাতদন্তের আবেদন করলেও কারও বিরুদ্ধে খুনের অভিযোগ করেনি ৷ যদিও ইতিমধ্য়েই খবর পেয়ে দেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে পাঠানো হয়েছে।

 

আরও পড়ুন, Election Live Update- পশ্চিম মেদিনীপুরের দাসপুরের সভায় মমতা, ওদিকে সবংয়ে কী বার্তা দিলীপের 


এদিকে এই ঘটনার পরে মেদিনীপুর বিধানসভার বিজেপি প্রার্থী , বিজেপির প্রাক্তন জেলা সভাপতি সমিত দাস কর্মীদের নিয়ে হাজির হয়ে যান তাঁর বাড়িতে৷ সেখানে পরিবারের লোকেদের সমবেদনা জানিয়ে ঘটনায় পরিকল্পিত খুনের অভিযোগ করেছেন ৷  সমিত দাস বলেন,' পুলিশ সকালে দেহটি উদ্ধারের পরে পরিবারের লোককে পর্যন্ত জানায়নি ৷ আমাদের সক্রিয় কর্মী ছিল লালমোহন ৷ আদিবাসী যুবককে সফট টার্গেট করেছে তৃণমূল ৷ রাজ্যের সর্বত্রই একই কায়দাতে মেরে ঝুলিয়ে দেওয়া হয় ৷ এই কাজ তৃণমূলের ৷ নির্বাচনের আগে সন্ত্রাশের বাতাবরন তৈরী করতে এই কাজ করেছে পরিকল্পিত ভাবে ৷ পুলিশ শাসকদলের হয়ে কাজ করছে ৷ আমরা প্রয়োজনের তদন্ত ও ব্যবস্থা নেওয়ার আবেদন করছি ৷ '

 

 

অপরদিকে যদিও এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে তৃণমূল। তৃণমূলের দাবি, পারিবারিক বিবাদের কারণের আত্মঘাতী হয়েছেন ওই যুবক। উল্লেখ্য,  রাত পেরোলেই রাজ্য়ে প্রথম দফার ভোট।  শনিবার প্রথম দফা নির্বাচনের ৩০ টি বিধানসভা আসনের মধ্য়ে শালবনি অন্যতমষ গ্রামে ইতিমধ্য়েই কেন্দ্রীয় বাহিনী কড়া নজর রাখছে। আর তারই মধ্যেই রাজনৈতিক কর্মীর দেহ উদ্ধার হতে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে এলাকায়। ঘটনার পরই নির্বাচন কমিশনের তরফে জেলা পুলিশ সুপারকে বদলি করা হয়েছে। উঠেছে সিআইডি তদন্তের দাবিও। শুক্রবার ঘটনাস্থলে যাবেন পর্যবেক্ষক বিবেক দুবে।