তৃণমূলের দীর্ঘ দিনের বিধায়ক। রাজ্যে বিজেপির হাওয়ায় যে সকল নেতারা ঘাসফুল ছেড়ে পদ্ম ফুল ধরেছেন তাদের মধ্যে অন্যতম ডায়মন্ড হারবারের দীপক হালদার। শুভেন্দু অধিকারী দল ছাড়া পরপরই দীপক হালদারও তৃণমূল সঙ্গ ত্যাগ করেছেন। বিজেপিতে এসে নিজের কেন্দ্রেই বিধানসভার টিকিট পেয়েছেন ঘাসফুলের বিদায়ী বিধায়ক। ২০২১ সালের নির্বাচনে  নিজের মনোনয়ন পেশ করাপ সময়, নিয়ম অনুযায়ী নিজের সম্পত্তির হিসেবও দিয়েছেন দীপক হালদার।

ডায়মন্ডহারবারের বিজেপি প্রার্থী দীপক হালদার ইউটিআই ও এলআইসির এজেন্ট। তাঁর স্ত্রী পোস্ট অফিসের সেভিংস প্রকল্পের এজেন্ট। দীপক ও তাঁর স্ত্রীর যৌথ সম্পত্তির পরিমাণ এক কোটি ৬২ লক্ষ ৪ হাজার ৯৭০ টাকা। দুজনের হাতে মিলিত নগদের পরিমাণ ৩১ হাজার টাকার কিছু বেশি। ব্যাঙ্কে গচ্ছিত রয়েছে ৪ লক্ষ ৪১ হাজার ৩০৮ টাকা। কোম্পানি শেয়ার ইত্যাদির পরিমাণ ২ লক্ষ ১১ হাজার টাকা। বিভিন্ন এলআইসি পলিসিতে দম্পতির বিনিয়োগের পরিমাণ ২৫ লক্ষ ২০ হাজার টাকা। ২০১৬ সালের একটি মাহিন্দ্রা এক্সইউভি গাড়ি রয়েছে দীপক হালদারের, যার তৎকালীন দাম ছিল ৬ লক্ষ ৮০ হাজার টাকা, এখন যার বাজারমূল্য ঠিক অর্ধেক, ৩ লক্ষ ৪০ হাজার টাকা বলে দেখানো হয়েছে হলফনামায়। দীপকের রয়েছে সাড়ে দশ গ্রাম সোনা, যার দাম ৪ লক্ষ ৫৭ হাজার ২০০ টাকা, দীপকের স্ত্রীর কাছে যে সোনা রয়েছে তার পরিমাণ মাত্র ২.৩৯ গ্রাম, দাম ১ লক্ষ ১২ হাজার ৪০০ টাকা। দুজনের মিলিত অস্থাবর সম্পত্তির পরিমাণ ৪১ লক্ষ ১২ হাজার ৯৬৮ টাকা। 

মোট ১.২১ একর কৃষিজমি রয়েছে দীপক হালদারের, যার বাজার দাম ৪১ লক্ষ ৪০ হাজার টাকা। ডায়মন্ডহারবারে ৩০৫২ বর্গফুটের একটি কৃষিজমির মালিক দীপক, যার দাম ২ লক্ষ ১০ হাজার টাকা। ১৩০০ বর্গফুটের বসতবাড়ি রয়েছে তাঁর, যার দাম ২০ লক্ষ টাকা। তাঁর মোট অস্থাবর সম্পত্তি ৬৩ লক্ষ ৫০ হাজার টাকার।  তাঁর নামে কার লোন রয়েছে ৮৫ হাজার ২৯২ টাকার। এবার ডায়মন্ড হারবারে লড়াই যে খুব একটা সোজা নয়, তা ভালো মতনই জানেন দীপক হালদার। তৃণমূলের পাশাপাশি রয়েছে সংযুক্ত মোর্চা সমর্থিত বামেদের তরুণ তুর্কীও। যদিও নিজের জয়ের বিষয়ে আত্মবিশ্বাসী দীর্ঘ দিনের পোড় খাওয়া রাজনীতিবিদ দীপক হালদার।